ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে পানি নিস্কাশন বন্ধ হয়ে বোরো ধান তুলিয়ে যাওয়ার প্রতিবাদে আজ বৃহস্পতিবার দুপুর একটায় উপজেলার লক্ষিপুর বাজার মোড়ে, দিনাজপুর-ঢাকা মহাসড়ক গাছ কেটে অবোরোধ করে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকেরা।

এক ঘন্টা অবোরোধ থাকার পর উপজেলা পরিষধ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ খুরশিদ আলম মতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুস সালাম চৌধুরী ঘটনা স্থলে গিয়ে কৃষকের পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা করায়, মহাসড়ক থেকে গাছ সরিয়ে নিয়ে অবোরোধ প্রত্যাহার করে।

অপরিকল্পিতভাবে আবাদী জমির পানিনিস্কাশনের কালর্ভাটের মুখে পুকুর খনননের কারনে পানি নিস্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায়, ওই এলাকার প্রায় ১ হাজার একর জমির বোরো ধান পানির নিচে তলিয়ে যায়, দিশেহারা হয়ে পড়েছে ওই এলাকার কৃষকরা। এই ঘটনায় ওই এলাকার সংশ্লিষ্ট দৌলতপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের নিকট বারবার অনুরোধ করা সত্বেও ইউনিয়ন চেয়ারম্যান কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করায় অবশেষে কৃষকেরা মহাসড়ক অবোরোধ করে।

ওই এলাকার ভুক্তভুগি কৃষক মঞ্জুরুল ইসলাম,ভুট্টু মিঞা, সাইদ আলী, ময়েন উদ্দিন, আ:হালিম, আলী হোসেন ও তাজমিলুর রহমান বলেন, অপরিকল্পিতভাবে বারাইপাড়া মোড়ে আবাদী জমির পানি নিস্কাশনের কালর্ভাটের মুখে পুকুর খনননের কারনে পানিস্কাশন বন্ধ হয়ে এ সমস্য হয়েছে। তারা আরো বলেন এই বিষয়ে সংশ্লিস্ঠ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ এর নিকট বারবার যোগাযোগ করেও কোন ব্যবস্থা চেয়ারম্যান নেয়নি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের ঘোনাপাড়া এলাকার আবাদী জমিতে পনিনিস্কাশনের জন্য নির্মিত কালর্ভাটের মুখ রোধ করে অপরিকল্পিতভাবে পুকুর খনন করায় বৃষ্টির পানিতে বোরো ধানের জমিতে জলাবদ্ধতা সৃস্টি হয়ে পানি নিস্কাশন বন্ধ হয়ে গেছে। এতে খয়েরবাড়ী ইউনিয়নের নারায়নপুর, লক্ষীপুর, মহাদীপুর, আর্দশগ্রাম, গড়পিংলাই, জয়নগর, বারাই পাড়াসহ বেশ কয়েকটি গামের ফসলি জমিতে ঐ এলাকার প্রায় ১হাজার একর পাকা-আধাপাকা বোরো ধান পানির নিচে তলিয়ে গেছে।

এ ব্যাপারে পানি প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টিকারী পুকুর খনন কারী দৌলতপুর ইউপি সদস্য হুমাইয়ুন এর সাথে কথা বললে, তিনি বলেন আমি ছাড়াও এ এলাকায় আরো আটটি পুকুর খননের কারনে পানি নিস্কাশনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়েছে। আমার পুকুরের পাশ দিয়ে পানিনিস্কাশনের জন্য জায়গা রাখা হয়েছে সেদিক দিয়ে পনিনিস্কাশনের ব্যাবস্থা করা যেতে পারে।

এই বিষয়ে দৌলতপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন এখানে সরকারী বরাদ্ধ দিয়ে পানি নিস্কাশনের বড় ড্রেন করতে হবে যাতে এই জলধরা নদিতে নেমে যায়। এই বিষয়টি উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেখেছেন তারায় ব্যবস্থা নেবে।

বিষয়টি নিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা খয়েরবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান আবুতাহের মন্ডল বলেন অপরিকল্পিতভাবে পুকুর খনননের কারনে পানির জলবধ্যতায় কৃষকদের ফসলের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি বলেন বিষয়টি উপজেলা পরিষোদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার সরজমিনে দেখেছেন তারা প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করবেন।

এই বিষয়ে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ খুরশিদ আলম মতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুস সালাম চৌধুরী’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা বলেন, কৃষকের প্রয়োজন অনুযায়ী যা করার প্রয়োজন সেই বিষযটি বাস্তবায়ন করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য