ইন্দোনেশিয়ার উচ্চ-নিরাপত্তার একটি কারাগারে দাঙ্গা চলাকালে জঙ্গিরা পাঁচ পুলিশ সদস্যকে হত্যা করেছে ও অপর একজনকে জিম্মি করেছে।

বুধবার রাজধানী জাকার্তার নিকটবর্তী একটি কারাগারে এ ঘটনা ঘটেছে বলে পুলিশের বরাতে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

এক সংবাদ সম্মেলনে দেশটির জাতীয় পুলিশ বাহিনীর মুখপাত্র মুহাম্মদ ইকবাল জানিয়েছেন, ডেপক শহরে মোবাইল পুলিশ ব্রিগেডের সদরদপ্তরের ভিতরের কারাগারটির এ ঘটনায় এক বন্দিও নিহত হয়েছেন।

তিনি বলেন, “আমাদের পাঁচ সহকর্মী নিহত হয়েছেন। আমাদের অপর এক সহকর্মী এখনও ভিতরে আছেন এবং তাকে জিম্মি করা হয়েছে।”

বন্দিরা ওই কর্মকর্তাদের অস্ত্রগুলো নিয়ে নিয়েছে, এমন সন্দেহ করা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বার্তা সংস্থা আমাক এক বার্তায় এ ঘটনার দায় স্বীকার করে জানিয়েছে, এ ঘটনায় ১০ সন্ত্রাসবিরোধী কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন।

এই হামলার পেছনে আইএস আছে বা তাদের পরিকল্পনায়ই এটি ঘটেছে এমন দাবি প্রত্যাখ্যান করেছেন ইকবাল।

এই পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, তাদের জন্য আনা খাবার পরীক্ষা করা নিয়ে কর্তৃপক্ষের কাছে আপত্তি জানায় বন্দিরা, এ নিয়ে তর্কাতর্কি থেকে ঘটনার সূত্রপাত হয়।

তখনও পর্যন্ত পুলিশ বন্দিদের সঙ্গে আপস করার চেষ্টা করছিল বলে জানিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, “আমরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছি, ঘটনা যেন ছড়িয়ে পড়তে না পারে তার জন্য বন্দিদের ধরে রেখেছি। আমরা এখনও আপস করার চেষ্টা করছি যেন আমাদের চূড়ান্ত পদক্ষেপ নিতে না হয়।”

স্বনির্ভর নিউজ ওয়েবসাইট ডেটিক ডটকম জানিয়েছে, কারাগারটি থেকে পাঁচটি অ্যাম্বুলেন্স পুলিশ হাসপাতালে গেছে, সেখানে মৃতদেহ ভরা ছয়টি কমলা রঙয়ের ব্যাগ নামিয়ে স্ট্রেচারে রাখা হয়েছে।

মন্তব্যের জন্য অনুরোধ করা হলেও পুলিশ হাসপাতালের প্রধান তাৎক্ষণিকভাবে সাড়া দেননি বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

বুধবার কারাগারটির চারদিকে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা বলবৎ করা হয় এবং উৎসুক দর্শনার্থীদের প্রবেশ পথ থেকে অনেকটা দূরে রাখা হয়।

গত সপ্তাহে সন্ত্রাসবিরোধী পুলিশ তিন জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করেছিল। তারা পশ্চিম জাভায় পুলিশের তিনটি ভবনে হামলার পরিকল্পনা করছিল বলে সন্দেহ।

আইএসে প্রতি সহানুভূতিশীলরা গত কয়েক বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে ইন্দোনেশিয়ার বিভিন্ন জায়গায় হামলা চালিয়ে আসছে। গত বছর জাকার্তার বাস টার্মিনালে প্রেসার কুকার বোমা ব্যবহার করে চালানো হামলায় তিন পুলিশ নিহত ও ১২ জন আহত হয়েছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য