পশুকল্যাণের উদ্দেশ্যে অক্ষয় কুমারের পোশাক নিলামে তোলায় সামাজিক মাধ্যমে বিতর্ক শুরু হয়েছে। এক ভারতীয় সেনাকর্মী ফেইসবুকে টুইঙ্কলকে চিঠি লিখে হুমকি দিয়েছেন।

টিনু সুরেশ দেশাই পরিচালিত ‘রুস্তম’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেতার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন অক্ষয় কুমার।

অক্ষয় ‘রুস্তম’ সিনেমায় ভারতীয় নৌবাহিনীর যে পোশাকটি পরেছিলেন সেটি নিলামে তুলেছেন তার স্ত্রী টুইঙ্কল খান্না।

ইনস্টাগ্রামে সেই পোশাকের ছবি দিয়ে টুইঙ্কল লিখেছেন, “পশু কল্যাণমূলক কাজের উদ্দেশ্যে এই পোশাকটি নিলামে তুলছি। এই সমাজ কল্যাণমূলক কাজের জন্য আশাকরি সকলেই সহযোগিতা করবেন।”

সঙ্গে সঙ্গে টুইঙ্কলের এই পোস্ট ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক মাধ্যমে। শুরু হয়ে যায় বিতর্ক।

অক্ষয়-পত্নীকে কটাক্ষ করে অনেকেই লিখেন ‘‌ফিল্মের পোশাক আর উর্দির মধ্যে পার্থক্য করতে শিখুন। ফিল্মের পোশাক নিলামে তোলা যায়, নৌসেনার উর্দি নয়।’

ফেইসবুকে টুইঙ্কলকে হুমকি দিয়ে খোলা চিঠি লেখেন সন্দীপ আহলাওয়াত নামে এক ভারতীয় লেফটেনেন্ট কর্নেল।

তিনি লিখেছেন, “অক্ষয় কুমার ছবিতে যা পরেছেন তাকে কস্টিউম বলা যায় ইউনিফর্ম নয়। ভারতীয় সেনার স্ত্রী কখনোই স্বামীর ইউনিফর্মকে নিলামে তোলেন না।

সেনার ইউনিফর্ম এমন কোনো বস্তু নয় যা প্রযোজক কোনো সিনেমার নায়কের হাতে তুলে দেবে। দেশের রাষ্ট্রপতিই কেবল এই ইউনিফর্ম পরার অনুমতি দিতে পারেন। একে ঘাম-রক্ত দিয়ে অর্জন করতে হয়।

আপনি যদি ইউনিফর্মের নাম করে এ কস্টিউম নিলাম করার চেষ্টা করেন তাহলে আমি আপনাকে আদালতে টেনে নিয়ে যেতে বাধ্য হব।

আর আমার স্বরূপ যদি জানতে চান তাহলে বলব, আমাদের গর্বকে ছুঁতে আসলে প্রতিদান হিসেবে রক্তাক্ত নাক পাওয়া যাবে।”

এর উত্তরে অক্ষয়ের ঘরণীলেখেন, “ প্রকাশ্যে এক জন মহিলাকে শারীরিকভাবে আঘাত করার কথা কোন সামাজিকতার পরিচয়?”

টাইমস অব ইন্ডিয়া জানাচ্ছে, এই বিতর্কে স্ত্রীর পাশেই থাকছেন জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত অভিনেতা অক্ষয় কুমার।

তিনি বলেছেন,“এই বিষয়ে আমি আমার স্ত্রীকেই সমর্থন করি। একটি ভালো কাজের জন্যই আমি এবং আমার স্ত্রী পোশাকটি নিলামে তুলেছি।এই পোশাকটি আমি ফিল্মে পরেছিলাম। আমার মনে হয়না, আমরা খারাপ কিছু করেছি।”

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য