নাইজেরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় আদামাওয়া রাজ্যের একটি মসজিদের ভেতরে ও বাইরে দুটি আত্মঘাতী বোমা হামলায় অন্তত ২৭ জন নিহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার রাজ্যটির মুবি শহরে এ হামলার ঘটনায় আরও ৫৬ জন আহত হয়েছেন বলে স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

হামলার ধরন দেখে একে বোকো হারামের কাজ বলে মনে করা হচ্ছে, যদিও শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত উগ্র এ জঙ্গিগোষ্ঠীটি হামলার দায় স্বীকার করেনি।

আদামাওয়া রাজ্যের পুলিশ কমিশনার আবদুল্লাহি ইয়েরিমা জানান, মঙ্গলবার স্থানীয় সময় দুপুর ১টার দিকে আত্মঘাতী এক হামলাকারী মসজিদের ভেতরে একটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়।

আতঙ্কিত মুসল্লীরা পালিয়ে যাওয়ার সময় মসজিদের ২০০ মিটার বাইরে অপর এক হামলাকারী দ্বিতীয় আরেকটি আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটায়।

মুবি জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসা বিষয়ক প্রধান পরিচালক এজরা সাকাওয়া মসজিদে হামলায় ২৭ জন নিহত ও আরও ৫৬ জন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

উগ্রপন্থি জঙ্গিগোষ্ঠী বোকো হারাম ২০১৪ সালে এ আদামাওয়া রাজ্যটির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিল। যদিও পরের বছরের শুরুতেই সরকারি বাহিনী তাদেরকে পিছু হটিয়ে অঞ্চলটিতে ফের নিজেদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করে।

গত বছরের নভেম্বরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় ৫০ জন নিহত হওয়ার আগ পর্যন্ত মুবি শহরকে তুলনামূলক নিরাপদ বলেই বিবেচনা করা হচ্ছিল।

২০০৯ সাল থেকে আফ্রিকার সবচেয়ে জনবহুল দেশ নাইজেরিয়ায় তৎপরতা শুরু করে কট্টর উগ্রবাদী সংগঠন বোকো হারাম। জঙ্গি এ গোষ্ঠীটি প্রায়ই ভিড়ের মধ্যে আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটিয়ে তাদের উপস্থিতির জানান দিয়ে আসছে।

জিহাদি এ গোষ্ঠীটি এর আগে গত বৃহস্পতিবার পার্শ্ববর্তী অঙ্গরাজ্য বোর্নোর রাজধানী মাইদুগুরিতেও হামলা চালিয়েছিল, ওই হামলায় চারজন নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম।

রয়টার্স বলছে, বোকো হারামের হামলায় দেশটিতে এরই মধ্যে ৩০ হাজারেরও বেশি লোক নিহত হয়েছেন; ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছেন অন্তত ২০ লাখ মানুষ।

জঙ্গিদের এসব তৎপরতা আগামী বছর হতে যাওয়া দেশটির সাধারণ নির্বাচনে প্রভাব ফেলবে বলে মনে করা হচ্ছে। ২০১৫ সালে দায়িত্ব নেওয়া প্রেসিডেন্ট মুহাম্মাদু বুহারি দেশটির উত্তরপূর্বাঞ্চলে আলাদা ইসলামি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় তৎপরতা চালানো বোকো হারামকে নির্মূল করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। জঙ্গিদের পুরোপুরি উৎখাতে দ্বিতীয় মেয়াদেও দায়িত্ব পালনের আগ্রহের কথা জানিয়েছেন তিনি।

২০১৫ সালের ডিসেম্বরে নাইজেরিয়ার সরকার বোকো হারাম পরাজিত হয়েছে বলে ঘোষণা দিয়েছিল। যদিও সাম্প্রতিক মাসগুলোতে জঙ্গিগোষ্ঠীটি বেশ কয়েকটি বড় বড় হামলা চালিয়ে নিজেদের উপস্থিতির প্রমাণ দিয়ে আসছে।

জিহাদী এ গোষ্ঠীটি সম্প্রতি ধাপচি শহর থেকে ১১১ জন স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করেছে। রান শহরে তাদের হামলায় দাতা সংস্থার তিন কর্মীও নিহত হয়েছেন।

নাইজেরিয়ার উত্তরপূর্বাঞ্চলে চালানো হামলাগুলোর ধারবাহিকতাতেই মঙ্গলবার মসজিদে এ আত্মঘাতী বিস্ফোরণ বলে ধারণা পর্যবেক্ষকদের।

মুবি থেকে ২০০ কিলোমিটার দূরের মাইদুগুরিতে গত মাসে অন্তত দুই দফা এ ধরনের হামলার ঘটনা ঘটেছে। এপ্রিলের শুরুতে মাইদুগুরিতে জঙ্গিগোষ্ঠীটির হামলায় অন্তত ১৫ জন নিহত ও ৮৩ জন আহত হয়েছিলেন।

চলতি বছরের মার্চে নাইজেরিয়ার সরকার স্থায়ী যুদ্ধবিরতির লক্ষ্যে বোকো হারামের একাংশের সঙ্গে আলোচনার কথা জানিয়েছিল। ২০১৬ সালে এ জঙ্গিগোষ্ঠীটি দুটি ভাগে বিভক্ত হয়ে গিয়েছিল। এর কোন অংশের সঙ্গে আলোচনা চলছে তা প্রকাশ করেনি নাইজেরিয়ার সরকার।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য