দিনাজপুর সংবাদাতাঃ ‘গো ফর গোল্ড’ এই শ্লোগানে ২০২০ সালের অলিম্পিক গেমস-এ অংশ নিতে দিনাজপুরে ১০ দিন ব্যাপী অনুর্ধ-১৬ আরচ্যারী প্রশিক্ষন ক্যাম্প শুরু হয়েছে।

৩০ এপ্রিল সোমবার বাংলাদেশ আরচ্যারী ফেডারেশনের সহযোগিতায় ও সিটি গ্রুপের পৃষ্টপোষকতায় এবং জেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে দিনাজপুর স্পোর্টস ভিলেজে বেলুন ফেস্টুন উড়িয়ে এই আরচ্যারী প্রশিক্ষণ ক্যাম্প এর উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি।

আয়োজকরা জানান, সিটি গ্রুপের তীর কোম্পানী তীরান্দাজের সাথে তাদের নাম মিলে যাওয়ায় এই প্রশিক্ষনের আয়োজন করেছে।প্রশিক্ষণ উদ্বোধনের পূর্বে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি।

দিনাজপুর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) মোঃ জয়নুল আলমের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার মো. হামিদুল আলম, বাংলাদেশ আরচ্যারী ফেডারেশনের ও নির্বাহী সদস্য কোচ ফারুক ঢালী, সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাহী অফিসার ফিরুজুল ইসলাম ফিরোজ, দিনাজপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সিনিয়র সহ-সভাপতি আজিজুর রহমান, দিনাজপুর নাট্য সমিতির সভাপতি চিত্ত ঘোষ। প্রথান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি।

বাংলাদেশ আরচ্যারী ফেডারশনের সহ-সভাপতি ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক সুব্রত মজুমদার ডলার বলেন, বাংলাদেশে বর্তমানে আচ্যারী ইভেন্ট অত্যান্ত সম্ভাবনাময় ইভেন্ট। আমাদের দেশের প্রচুর তরুন-তরুনী এই খেলার প্রতি আগ্রহ প্রকাশ করছে। আমরা চাচ্ছি প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে সেই সমস্ত প্রতিভাবান তরুন-তরুনীদের বেছে নিয়ে তাদেরকে উন্নত প্রশিক্ষনের মাধ্যমে তাদের প্রকৃত খেলোয়াড় হিসেবে গড়ে তুলবো এবং ২০২০ সালে যে অলিম্পিক গেমস অনুষ্ঠিত হবে সেখানে যাতে আমাদের আরচ্যাররা তাদের প্রতিভা মেলে ধরে পদক ছিনিয়ে আনতে পারে সেই লক্ষ নিয়ে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

বাংলাদেশ আরচ্যারী ফেডারশনের নির্বাহী সদস্য ও কোচ ফারুক ঢালী জানান, প্রাথমিক পর্যায়ে ১২টি জেলায় এই প্রশিক্ষন দেয়া হবে। দিনাজপুরে উদ্বোধনী দিনে প্রশিক্ষণে অংশ নিতে আসে বিভিন্ন স্কুল, ক্লাবের প্রায় ২শ তীরন্দাজ। এদের মধ্যে প্রথম দিনই বাছাই করা হবে ৫০জন প্রতিযোগিকে। ২য় ধাপে সেই ৫০ জন থেকে বাছাই করে ২০ জনকে নেয়া হবে এবং ৩য় ধাপে সেই ২০ জন থেকে শুধু ২ জন (বালক-বালিকা) কে নির্বাচন করা হবে। এভাবে ১২টি জেলা থেকে মোট ২৪ জন প্রতিযোগি তীরান্দাজকে বাছাইয়ের মাধ্যমে ঢাকা নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে আরচ্যারী ফেডারেশনের সম্পূর্ন খরচে তাদের চুড়ান্ত প্রশিক্ষণ দেয়া হবে আগামী ২০২০ সালে অলিম্পিকেক অংশ নেয়ার জন্য। ১০ দিন ব্যাপী প্রশিক্ষনে আরো তিন জন কোচ মো. দেলোয়ার হোসেন, মো. সাইফুল ইসলাম ও মো. শাহালম প্রতিযোগিদের তীরান্দাজ প্রশিক্ষণ দিবেন। প্রশিক্ষন চলবে প্রতিদিন সকাল ৮ টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত।

উদ্বাধনী অনুষ্ঠানে তীরান্দাজ ফারিয়া আক্তার শাপলা ও আজমিরা আক্তার বলেন, আমাদের লক্ষ হলো স্বর্ণ জয়ের। তাই আমরা এ প্রশিক্ষণ গ্রহন করছি। আর দিনাজপুরে থেকেই এ প্রশিক্ষন পেয়ে আমরা নিজেদের ভাগ্যবান মনে করছি। এখান থেকে নিজেকে একজন দক্ষ তীরান্দাজ হিসেবে গড়ে ২০২০ সালে অলিম্পিক গেমস্ এ অংশ নিয়ে স্বর্ণ জয় করবো ইনশাআল্লাহ।
পরে প্রশিক্ষন ক্যাম্পের উদ্বোধন করে অতিথিবৃন্দ একবার করে তীরান্দাজের চেষ্টা করেন।

আরচ্যারী প্রশিক্ষন ক্যাম্প উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. মাহাফুজ্জামান আশরাফ, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক বিশ্বজিৎ ঘোষ কাঞ্চন, জেলা ক্রীড়া সংস্থার কর্মকর্তা ও বিভিন্ন স্কুলের তরুন-তরুনী এবং খেলোয়ারবৃন্দ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য