ইরানের পারমাণবিক চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের প্রত্যাহারের হুমকি দিলেও যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও জার্মানি চুক্তিটির পক্ষে অবস্থান নিতে একমত হয়েছে। রবিবার ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’র কার্যালয়ের এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা এখবর জানিয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ ও জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলো ম্যার্কেলের সঙ্গে ফোনালাপ করেছেন। এতে তারা একমত হয়েছেন ইরানের পারমাণবিক চুক্তির আওতা আরও ব্যাপৃত করা দরকার। চুক্তি যদি বাতিল হয়ে যায় তাহলে ইরানের আঞ্চলিক নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড বৃদ্ধি পেতে পারে।

এতে আরও বলা হয়, তারা একত্রে এবং যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কাজ করতে সম্মত হয়েছেন। একই সঙ্গে তারা ইরানের যে কোনও হুমকি মোকাবিলায়ও একসঙ্গে কাজ করতে রাজি হয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছে নতুন চুক্তির বিষয়।

আগামী ১২মে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন। ২০১৫ সালে করা বিশ্ব শক্তির সঙ্গে চুক্তির আওতায় এসব নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। ট্রাম্প তার ইউরোপীয় মিত্রদেরও ওপর ইরান চুক্তি সংস্কার করার জন্য চাপ দিয়ে যাচ্ছেন। ম্যাক্রোঁ ও ম্যার্কেল গত সপ্তাহে ট্রাম্পের সঙ্গে এই বিষয়ে সাক্ষাৎ করেন।

পরমাণু চুক্তির আওতায় ইরান তাদের পরমাণু কার্যক্রম স্থগিত করতে রাজি হয়। বিনিময়ে তাদের ওপর থেকে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে হবে। ট্রাম্পের পূর্বসূরী বারাক ওবামা ওই চুক্তিটি স্বাক্ষর করে পরমাণু অস্ত্র নির্মাণ থেকে ইরানকে বিরত রাখেন। কিন্তু ট্রাম্প বিশ্বাস করেন চুক্তিটিতে ধ্বংসাত্মক ত্রুটি রয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য