ভারতের উত্তর প্রদেশের কুশীনগরে ট্রেনের সঙ্গে স্কুল ভ্যানের সংঘর্ষে অন্তত ১৩ শিশু শিক্ষার্থীসহ ১৪ জন ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও অন্তত ৮ জন। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া জানায়, বিষ্ণুপুরা পুলিশ স্টেশনের অধীনে পরিচালিত বাহপুরবা রেলওয়ে ক্রসিংয়ে বৃহস্পতিবার (২৬ এপ্রিল) সকাল সাড়ে সাতটার দিকে এ দুর্ঘটনা হয়।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, ভারতে এ এপ্রিলেই স্কুলশিক্ষার্থীদের নিয়ে দ্বিতীয় বড় দুর্ঘটনা এটি। গত ৯ এপ্রিল হিমাচল প্রদেশের নুরপুরের কাছে ২০০ ফুট গভীর গিরিখাতে বাস পড়ে ৩০ জন মারা যান। এদের মধ্যে ২৩ জন ছিল স্কুল শিক্ষার্থী।

বৃহস্পতিবার যে স্কুল ভ্যানটি দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে তা কুশীনগরের ডিভাইন মিশন স্কুলের। ওই বাসে করে স্কুলে যাচ্ছিল শিক্ষার্থীরা। রেলওয়ে ক্রসিং পার হওয়ার সময় এসে পড়ে যাত্রীবাহী ট্রেন। বাস ও ট্রেনের সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই মারা যায় ১৩ শিক্ষার্থী।

বাস চালকও ঘটনাস্থলেই নিহত হন। ট্রেনটি সিভান থেকে গোরাখপুরে যাচ্ছিলো। টাইমস অব ইন্ডিয়া জানায়, স্কুল বাসটির চালকের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তিনি দুর্ঘটনার সময় ইয়ারফোনে গান শুনছিলেন। তবে এর সত্যতা নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলে উল্লেখ করেছে সংবাদমাধ্যমটি।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং এ ঘটনায় শোক জানিয়ে টুইট করেছেন। দুর্ঘটনায় শোক প্রকাশ করে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ মৃতদের পরিবারের জন্য ২ লাখ টাকা করে সহায়তা ঘোষণা করেছেন।

দুর্ঘটনা নিয়ে তদন্ত করার জন্য গোরখপুরের কমিশনারকে নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। রেলমন্ত্রী পীযূষ গয়ালও মৃতদের পরিবারের জন্য ২ লাখ টাকা করে সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, রেলের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা দুর্ঘটনা নিয়ে তদন্ত করবেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য