পশ্চিম জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনের রাজধানী না করলে কোনোরকম শান্তিচুক্তির প্রস্তাব মানবে না দেশটির কর্তৃপক্ষ। মুখপাত্র নাবিল আবু রুদেইনা বলেন, ‘জেরুজালেমকে রাজধানী করা ছাড়া কোনও আশ্বাস বা স্লোগানেই কাজ হবে না। কোনও ফিলিস্তিনি তা মেনে নেবে না।’ মধ্যপ্রাচ্যের সংবাদভিত্তিক ব্রিটিশ ওয়েবসাইট মিডল ইস্ট মনিটরের এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

আবু ‍রুদায়না বলেন, ‘এর কোনও সমাধান নেই। পশ্চিম জেরুজালেমকে রাজধানী করে স্বাধীন ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র গঠনের কোনও বিকল্প নেই।’ তবে এই বিবৃতি প্রকাশের কোনও কারণ জানাননি তিনি।

ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের এক সূত্র জানায়, ইসরায়েল-ফিলিস্তিন দ্বন্দ্ব থামাতে মার্কিন পরামর্শ মানার জন্য কয়েকটি দেশ পরামর্শ দিয়েছে। তবে সেখানে পশ্চিম জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনি রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার কোনও উল্লেখ নেই।

৬ ডিসেম্বর বুধবার জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ইসরায়েলের মার্কিন দূতাবাস তেল আবিব থেকে সরিয়ে জেরুজালেমে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতির কথাও জানান তিনি। এই নিয়ে ফিলিস্তিনসহ বিশ্বজুড়ে তুমুল নিন্দা ও প্রতিবাদ অব্যাহত রয়েছে। ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষও পূর্ব জেরুজালেমের একাংশকে তাদের ভবিষ্যত স্বাধীন রাষ্ট্রের রাজধানী করতে চায়।

১৯৬৭ সালে জেরুজালেম দখল করে নেয় ইসরায়েল। এরপর থেকে তারা জেরুজালেমকে তাদের রাজধানী হিসেবে দাবি করে আসলেও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় তার বৈধতা দেয়নি। অন্যদিকে ফিলিস্তিনি নেতারা দাবি করে আসছেন পূর্ব জেরুজালেম তাদের রাজধানী হবে।

বহুমুখীচাপ ও প্রতিবাদের মুখেও ডোনাল্ড ট্রাম্প ইসরায়েলের রাজধানীর হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার পর থেকে জেরুজালেম সবার মনযোগের কেন্দ্রে রয়েছে। ওই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ফিলিস্তিনসহ বিশ্বব্যাপী নিন্দার ঝড় ওঠে। এরপর জেরুজালেম বিষয়ে যেকোনও সিদ্ধান্ত অকার্যকর ঘোষণা করে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদেও প্রস্তাব পাস করা হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য