চ্যাম্পিয়নস লীগের সেমিফাইনাল শুরুর আগে ইংল্যান্ডের লিভারপুল শহরের অ্যানফিল্ডে ইংলিশ ফুটবল ক্লাব লিভারপুল ও ইতালির রোমার সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে।

লিভারপুলের হোম গ্রাউন্ড অ্যানফিল্ড স্টেডিয়ামের বাইরে রোমা সমর্থকদের হামলায় এক ব্যক্তি মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়েছেন বলে বিবিসি জানিয়েছে।

৫৩ বছর বয়সী ওই আহত ব্যক্তি লিভারপুলের সমর্থক বলে ধারণা করা হচ্ছে। তাকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

খেলা শুরুর কিছুক্ষণ আগে স্থানীয় সময় ৭টা ৩৫ মিনিটে ওয়ালটন ব্রিকের অ্যালবার্ট পাবের বাইরে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

হামলায় জড়িত সন্দেহে ইতালির রাজধানী রোম থেকে আসা ২৫ ও ২৬ বছর বয়সী দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

ঘটনায় ‘আতঙ্কিত ও হতাশ’ লিভারপুল এক বিবৃতিতে আহত ব্যক্তিকে সব ধরনের সহযোগিতা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

“প্রত্যক্ষদর্শীদের তথ্য অনুযায়ী আহত ব্যক্তিকে বেল্ট দিয়ে আঘাত করা হয়, তারপরই তিনি মাটিতে পড়ে যান। তার এখনকার অবস্থা গুরুতর, আহতের পরিবারের সদস্যদের এ খবর দেওয়া হয়েছে,” বলেন মেরসেইসাইড পুলিশের ডিটেক্টিভ ইন্সপেক্টর পল স্পেইট।

বিবিসি বলছে, সেমিফাইনাল মাঠে গড়ানোর আগেই অ্যানফিল্ডের চারপাশের বেশ কয়েকটি এলাকায় দুই দলের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া, পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

লিভারপুলের সমর্থকরা জড়ো হওয়ার পর রোমার প্রায় ৮০ সমর্থকদের একটি দল পাশের রাস্তা থেকে এসে তাদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে।

সংঘর্ষের সময় বিবিসি স্পোর্টসের এক ভিডিও ফুটেজে লিভারপুলের এক সমর্থককে মাটিতে পড়ে থাকতে দেখা গেছে, রোমার এক সমর্থকের হাতে তখন হাতুড়ি ছিল ।

হামলা, আক্রমণ, অস্ত্র প্রদর্শন ও ক্ষয়ক্ষতির অভিযোগে পুলিশ ২০ থেকে ৪৩ বছর বয়সী ৭ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

দুই দলের সমর্থকরাই বেশ কয়েকটি স্থানে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছে বলে জানিয়েছেন সুপারিনটেন্ডেন্ট ডেভ চারনক।

গোয়েন্দারা খেলা শুরুর আগে মাঠের বাইরে মশাল ব্যবহারের ঘটনা নিয়েও তদন্ত করছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

কপ এন্ডে রোমা সমর্থকরা লিভারপুল সমর্থকদের ওপর হামলা চালালে সংঘর্ষ শুরু হয় বলে দাবি করেন বিবিসির স্পোর্টস নিউজ করেসপন্ডেন্ট ডেভিড অর্নস্টেইন।

তিনি জানান, ভেনমোর স্ট্রিট থেকে আসা একদল রোমা সমর্থক ওয়ালটন ব্রিক রোডের লিভারপুল সমর্থকদের ওপর হামলে পড়েন। হামলাকারীদের অনেকেই বেল্ট ব্যবহার করেছিল বলেও ভাষ্য তার।

‘দাঙ্গা ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায়’ আহত এক লিভারপুল সমর্থক মাটিতে পড়ে যাওয়ার পর তাকে দীর্ঘসময় চিকিৎসা দিতে হয়েছে বলেও জানান এ সাংবাদিক।

সানডে টাইমসের ফুটবল করেসপন্ডেন্ট জনাথন নর্থক্রফট টুইটে রোমা সমর্থকদের হামলাকে ‘আচমকা’ অভিহিত করে বলেন, “পুলিশ আসার আগেই লিভারপুল সমর্থকরা তাদেরকে (রোমা সমর্থক) ধাওয়া দিয়ে রাস্তা থেকে সরিয়ে দিয়েছিল।”

চলতি মাসের শুরুতে লিভারপুলের সঙ্গে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলতে আসা ম্যানচেস্টার সিটি ফুটবল দলের বাস হামলার মুখে পড়ায় সেমিফাইনাল ঘিরে অ্যানফিল্ডে প্রচুর পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল। তার মধ্যেই এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

ইউরোপীয়ান ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা উয়েফা লিভারপুলের সমর্থকদে বিরুদ্ধে ম্যানচেষ্টারের বাসে ক্যান, বোতল ও মশাল ছুড়ে মারারও অভিযোগ এনেছে।

ইংলিশ সমর্থকদের সঙ্গে রোমা সমর্থকদের সংঘর্ষের ঘটনাও নতুন নয়। ২০১২ সালে রোমে খেলা দেখতে গিয়ে টটেনহ্যামের বেশ কয়েকজন সমর্থক গুরুতর আহতও হয়েছিলেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য