আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে জমি-জমা সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে স্ত্রী নছিরন বেগমকে (৫০) হত্যা। ঘটনার সাথে জড়িত স্বামীসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। নৃশংস ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার ভোররাতে উপজেলার মনোহরপুরের পল্লীতে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মনোহরপুর ইউনিয়নের খামার মামুদপুর (পাতারেরপাড়া) গ্রামের ঘাতক স্বামী আব্দুর রশিদ ও মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলামের সাথে একটি জমির মালিকানা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।

জমি সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষ সিরাজুলকে ফাঁসাতে আব্দুর রশিদ তার নিজ পরিকল্পনায় স্ত্রী নছিমনকে হত্যার ফন্দি আঁটে।

সিরাজুলের ভোগ দখলে থাকা বিরোধপূর্ণ ওই জমিতে থাকা ধান মঙ্গলবার কাটবেন বলে সিরাজুলের পরিবার সিদ্ধান্ত নেন। এদিকে এলাকাবাসির অভিযোগে জানা যায়, ধান কাটার খবর পেয়ে সিরাজুলকে ফাঁসাতে রশিদ তার স্ত্রী নছিরন বেগমকে হত্যার উদ্দেশ্যে সোমবার রাতে বেধরক বেদম মারপিট করে।

এক পর্যায় নছিরন মৃত্যুর দিকে ধাবিত হবার সাথে-সাথে পাষন্ড স্বামী রশিদ শ্বাসরোধ করে তার স্ত্রীকে হত্যা করে। পরে ঘাতক স্বামী রশিদ সোমবার দিনগত ভোররাতে তার স্ত্রীর মৃতদেহ ওই বিরোধপূর্ণ ধানের জমিতে ফেলে আসে।

মঙ্গলবার সকালে অত্র ইউপি’র হরিণাবাড়ী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই মিজানুর রহমান সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করেন। লাশের শরীরের বিভিন্ন স্থানে একাধিক আঘাতের চিহৃ রয়েছে।

এ ঘটনায় স্বামী আব্দুর রশিদ (৬২), জামাতা মিজানুর (৩০), ভাতিজা মোনারুল (৪১) ও আরোও ১ জনসহ ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ। সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়না তদন্তের জন্য লাশ গাইবান্ধা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

খবর পেয়ে জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ-আল ফারুক, থানা অফিসার ইনচার্জ মাহমুদুল আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ব্যাপারে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য