বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে জরায়ুমুখ ক্যান্সার প্রতিরোধে জনসচেতনতা মুলক সায়েন্টিফিক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আয়োজনে স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেডের সহযোগিতায় স্থানীয় একটি হোটেলের হলরুমে উক্ত সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. মো. জাহাঙ্গীর কবিরের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল কুদ্দুস, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ডা. মাহামুদুল হাসান পলাশ, স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেডের এগ্রিবিউটিভ মেডিকেল সার্ভিসেস ডিপার্টমেন্ট ডা. এস এম জাহিদ হাসনাইন, স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেডের ডিএসএম মো. সহিকুল ইসলাম প্রমুখ।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক আফরোজ সুলতানা নুলা জানান, বাংলাদেশের মহিলাদের মধ্যে স্তন ক্যান্সারের পর এটি সংখ্যায় দ্বিতীয় রোগ।আইএআরসি এর জরিপ অনুযায়ী প্রতিবছর প্রায় ১১৯৫৬জন নারীর জরায়ুমুখ ক্যান্সার সনাক্ত হয় এবং মারা যায় ৬৫৮২জনেরও বেশী। কিন্তু আশার কথা হলো যে এটি প্রতিরোধ যোগ্য।

ভায়া পরীক্ষার মাধ্যমে প্রাথমিক অবস্থায় এটি সনাক্ত করা সম্ভব যা অনেকাংশেই নিরাময় যোগ্য। বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২০১৭সালের ১ডিসেম্বর হতে সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে সপ্তাহে ৬দিন ভায়া পরীক্ষা করা হয় এবং এ ব্যাপারে বিভিন্ন পরামর্শ প্রদান করা হয়। এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পর্যন্ত ২১৫জন নারী সেবা গ্রহণ করেছেন। এদের মধ্যে ৪জন ক্যান্সার আক্রান্ত নারী সনাক্ত করা হয়েছে।

জরায়ুমুখ ক্যান্সার প্রতিরোধের জন্য রয়েছে টিকা বা ভ্যাকসিন। ১৬-২৫বছর বয়সী যে কোন নারী অথবা যৌন জীবন শুরুর আগে (বিবাহের পুর্বে) যে কেউ এই টিকা নিতে পারেন। এই টিকার মোট ৩টি ডোজ। এই মুহুর্তে সরকারী উদ্যোগে বিনা মূল্যে এই টিকা বিতরণ শুরু করা না হলেও তবে ব্যক্তিগত অর্থায়নে নারীরা এই টিকা নিতে পারেন।

উল্লেখ্য, জরায়ু মুখ ক্যান্সারের টিকা রোগ নিরাময়ে কোন ভূমিকা রাখে না বা রোগ হবার পর টিকা দিলে কোন উপকার পাওয়া যায় না।

অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অন্যান্য চিকিৎসক ও কর্মকর্তা এবং কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য