কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলায় ব্রহ্মপুত্র ডান তীর রক্ষা প্রকল্পের কাঁচকোল দক্ষিণ খামার এলাকায় পিচিংসহ ৫০মিটার ব্লক ধসে পড়েছে। বর্ষা মৌসুম শুরুর আগেই ব্লক ধসে পড়ায় এলাকার মানুষের আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে।

জানা গেছে ব্রহ্মপত্র ডান তীর রক্ষা প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ে প্রায় ১০০ কোটি ও দ্বিতীয় পর্যায়ে ২৫২ কোটি টাকা ব্যয়ে উলিপুর উপজেলার বৈরাগীর ভিটা হইতে চিলমারী উপজেলার জোড়গাছ পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার ব্লক ডাম্পিং করে চিলমারী উপজেলা ব্রহ্মপুত্র নদের ভাঙ্গনের কবল থেকে রক্ষা পায়।

প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ের ডাম্পিং এর কাজ শেষ হলেও গত ১৭ এপ্রিল গভীর রাতে প্রবল বর্ষণে উজান থেকে নেমে আসা ঢলে কাঁচকোল দক্ষিণ খামার এলাকায় পিচিংসহ ৫০ মিটার ব্লক ধসে পড়ায় এলাকার মানুষের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

সরেজমিনে ব্লক ধসেপড়া এলাকায় গিয়ে দেখা যায় ৫০ মিটার পিচিংসহ ব্লক নদীগর্ভে ধসে পড়ায় বাকি পিচিং গুলো ভাঙ্গনের হুমকিতে রয়েছে।

উল্লেখ্য যে ধসেপড়া ব্লকের নিকটেই গত বর্ষা মৌসুমে প্রায় ৫০০ফিট পিচিংসহ ব্লক ধসে পড়লেও তা পূনঃ মেরামত না করেই বস্তা দিয়ে কোন রকমে ভাঙ্গন ঠেকিয়ে রেখেছে।

এ বছর বর্ষা মৌসুম শুরু হতে না হতেই পুনঃ মেরামতকৃত পিচিং এর উত্তরে আবারও ৫০মিটার পিচিংসহ ব্লক নদীতে ধসে গেছে। রানীগঞ্জ ইউনিয়েরে ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার রায়হানুল ইসলাম বিজু ও ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা গোলাম মওলা সুমন এ প্রতিনিধিকে জানান হঠাৎ করেই পিচিংসহ ব্লক ধসে পড়ায় বাঁধে আশ্রিত মানুষ ও পার্শ্ববর্তী এলাকার মানুষেরা আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়েছে।

তারা আরো জানান, নদীর গভীরতা নির্ণয় না করেই ব্লক ডাম্পিং করায় বার বার ব্লক ধসে পড়ছে। এভাবে ব্লক ধসে পড়লে আগামী বর্ষা মৌসুমে পানি ঢুকে চাচলার বিলের শত শত একর ফসলী জমি, সর্দার পাড়া,পুটিমারী কাজলডাঙ্গাসহ গোটা উপজেলা পানিতে নিমজ্জিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এব্যাপারে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম এ প্রতিনিধিকে জানান ধসেপড়া জায়গায় পুনঃমেরামত কাজ চলছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য