বীরগঞ্জ সংবাদাতাঃ বীরগঞ্জে কাল্ব পরিচালনা কমিটির ১৭ লক্ষ টাকা দুর্নীতির মাধ্যমে আত্মসাতের ২ লক্ষ ৩৬ হাজার ৬২৮ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

বীরগঞ্জ উপজেলা শিক্ষক-কর্মচারী কো-অপারেটিভ ক্রেডিট ইউনিয়ন লিঃ এর নুতন কমিটির চেয়ারম্যান মোঃ শরিফুল ইসলাম লাবু জানান, ২০১৪ইং-১৭ইং পর্যন্ত তৎকালিন নির্বাচিত কমিটির অর্থ সচিব (ট্রেজারার) খামার খড়িকাদাম উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শামসুল আলমসহ ৭ সদস্যের সংঘবদ্ধ দুর্নীতিবাজ চক্র ১৬ লক্ষ ৭৫ হাজার ৬৯৮ দশমিক ১৬ টাকা আত্মসাতের মধ্যে কমিটির অর্থ সচিব (ট্রেজারার) খামার খড়িকাদাম উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শামসুল আলম আত্মসাতের ২ লক্ষ ৩৬ হাজার ৬২৮টাকা গত ১২ এপ্রিল কাল্ব পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান মোঃ শরিফুল ইসলাম লাবুর কাছে রশিদ মুলে জমা দিয়ে দুর্নীতির দায় মুক্ত হয়েছে।

একই কমিটির দুর্নীতিবাজ চেয়ারম্যান আত্রাই বালিকা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ, ভাইস চেয়ারম্যান গোলাপগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ জাবেদ আলী, সেক্রেটারী বলরামপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাম মোস্তফা, ডিরেক্টর ঘোড়াবান্দ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আমিনুর রহমান, ডিরেক্টর পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ের কর্মচারী টংক নাথ রায় ও কাল্ব ম্যানেজার রেজাউল করিম আত্মসাতের অবশিষ্ট ১৪ লক্ষ ৩৯ হাজার ৬৯ টাকা পরিশোধ করেনি।

উল্লেখ্য, দুর্নীতিবাজ ৭ সদস্যের কমিটি ৩ বছর মেয়াদে বিভিন্ন ভুয়া শিক্ষকের নামের বিপরিতে ও বিভিন্ন খ্যাতে ৫৫ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকা উত্তোলন ও ভাগ বন্ঠকসহ আত্মসাত করে। শিক্ষক-কর্মচারী বিষয়টি বুঝতে পারলে তাড়াহুরা করে ৩৯ লক্ষ টাকা পরিশোধ করে। পরবর্তীতে শিক্ষক-কর্মচারীর গণঅভিযোগের পৃক্ষিতে জেলা প্রশাসন ডিস্ট্রিক সমবায় অফিসার আব্দুর রউফকে প্রধান করে তদন্ত কমিটি গঠন করেন। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে উল্লেখিত টাকা আত্মসাতের বিষয়টি চুড়ান্ত ভাবে প্রমানিত হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য