আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ মহামান্য আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলা শিক্ষা অফিসার, সহকারী শিক্ষা অফিসার ও গড়েয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের যোগসাজসে এডহক কমিটি কর্তৃক সিএসএফ প্রকল্পের পৃথক দু’টি প্রকল্প বাস্তবায়নের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

প্রাপ্ত অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার মহদীপুর ইউপি’র গড়েয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানিজিং কমিটি নিয়ে বিবাদমান দ্বন্দ্বের জের ধরে এলাকার শিক্ষানুরাগী মোঃ লোকমান হোসেন বাদী হয়ে উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার শাহানাজ খাতুনকে আসামী করে গাইবান্ধা সহকারী জজ আদালতে (২৮/২০১৭) একটি মামলা দায়ের করেন।

বাদী পরবর্তীতে এডহক কমিটির কার্যক্রমের উপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে বিজ্ঞ আদালতে আবেদন করলে আদালত পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বিদ্যালয়ের সকল উন্নয়ন প্রকল্প ও এডহক কমিটির কার্যক্রম স্থগিত করে।

বিজ্ঞ আদালত কার্যকারী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার কপি সংশ্লিষ্ট দপ্তর ও মন্ত্রনালয়ে প্রেরণ করে।

এদিকে মহামান্য আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল লতিফ মন্ডল, এডহক কমিটির সভাপতি ও উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার শাহানাজ খাতুন, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুল্যাহেল শাফীর যোগসাজসে গত ২০১৭ সালে সিএফএস প্রকল্পের ৫১ হাজার, ২০১৮ সালের সিএসএফ প্রকল্পের ৮০ হাজার টাকা উত্তোলন করেন।

এদিকে, বিজ্ঞ আদালতের নিষেধাজ্ঞার আরোপ হওয়ার পরে ও আদালত অবমাননা করে উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থ উত্তোলন করার বিষয়ে মতামত জানতে চাইলে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল লতিফ মন্ডল জানান ‘আমি আদালত অবমাননা করেছি তবে উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের নির্দেশেই করেছি’।

উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার ও এডহক কমিটির সভাপতি শাহানাজ খাতুন জানান সব কিছুর জন্যই প্রধান শিক্ষক দায়ী। আদালত অবমাননা করে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে আপনার স্বাক্ষর রয়েছে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান আমি স্বাক্ষর করেছি! তবে আমি নির্দোষ।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুল্যাহেল শাফী জানান জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের সাথে কথা বলে তিনি এই বিদ্যালয়ের প্রকল্প বাস্তবায়নের সদয় সম্মতি প্রদান করেছি। আদালতের নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি আমি অবগত নই।

এদিকে মহামান্য আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করায় প্রকৃত বিচার প্রার্থীরা মহামান্য আদালতসহ সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য