কাহারোল (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ কাহারোলে গমচাষীরা ইতি মধ্যে গম কাটা ও মাড়াই শেষ করেছে। কিন্তু বর্তমান বাজারে গমের নায্য মূল্য না পাওয়ায় চাষীদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে। অনেকেই গম চাষ বাদ দিয়ে অন্য ফসল চাষাবাদ করবে বলে জানিয়েছেন। দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলায় চলতি মৌসুমে গম কাটা ও মাড়াইয়ের কাজ শেষ করেছে ।

তবে গত বছরের চেয়ে এবছর গমের আশানুরুপ ফলন ভাল হওয়ায় কৃষকের মুখে হাঁসি ফুটলেও এ মৌসুমে গমের ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় এই নিয়ে চাষীদের মাঝে একপ্রকার চরম হতাশা বিরাজ করতে দেখা যাচ্ছে। গত শনিবার কাহারোল হাটে নতুন গম বিক্রির উদ্দেশ্যে নিয়ে আশা গমচাষী মোঃ ফরিদুল ইসলাম,দুর্জয় রায়,লিটন হোসেন সহ অনেকেই জানান, নতুন গম বর্তমান বাজারে ৮৩কেজি বস্তা হিসেবে বিক্রি করতে হচ্ছে ১৩৫০ টাকা থেকে ১৪৫০ টাকা দরে । কিন্তু যে হারে গম চাষাবাদ করতে গিয়ে খরচ হয়েছে, সেই খরচ তুলতে হিমশিম খাচ্ছে অনেক গমচাষীরা ।

এদিকে উপজেলা ভারপ্রাপ্ত খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা মোঃ আশিকুর রহমানের সঙ্গে চলতি মৌসুমে সরকারী ভাবে খাদ্য গুদামে গম ক্রয় হবে কিনা এ প্রসঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, এখন পযর্ন্ত আমাদের নিকট সরকারের পক্ষ থেকে গম ক্রয় সংক্রান্ত কোন চিঠি-পত্র আসেনি এবার সরকার কৃষকদের নিকট হতে গম ক্রয় করবে কি করবে না। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায়, চলতি গম চাষ মৌসুমে উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় গম চাষ করা হয়েছে ।

এরমধ্যে ১নং ডাবোর ইউনিয়নে ৬১০ হেক্টর,২নং রসুলপুর ইউনিয়নে ৪৪৫ হেক্টর, ৩নং মুকুন্দপুর ইউনিয়নে ১৩৫ হেক্টর,৪নং তাড়গাঁও ইউনিয়নে ৩০৭ হেক্টর,৫নং সুন্দরপুর ইউনিয়নে ১৩০ হেক্টর, ৬নং রামচন্দ্র পুর ১৫৮ হেক্টর সহ সর্বমোট ১৭৮৫ হেক্টর জমিতে এবার গম চাষাবাদ করা হয়েছে। এদিকে উপজেলার কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ শামীম জানান, এবার গম চাষের জন্য আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এবং সার, কীটনাশক,সেচের কোন প্রকার সংকট না হওয়ার কারণে অত্র উপজেলার গম চাষীরা ভাল ভাবে চাষাবাদ করতে পেরেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য