বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) সংবাদাতাঃ বীরগঞ্জে ১১ এপ্রিল স্কুল ছাত্রী অপহরনের ১৫ দিন পর উদ্ধার করে ইউনিয়ন গ্রাম্য সালিস আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

উপজেলা সদর দক্ষিন পলাশবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী
[অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় নাম ও ছবি গোপন করা হলো] (১৪)’কে একই ইউনিয়নের চকমহাদেব গ্রামের হযরত আলীর লম্পট ছেলে নওশাদ অরফে হৃদয় চৌধুরী (২৮) গত ২৪ মার্চ অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে অপহরন করে নিয়ে পালিয়ে যায় বলে জানান হয়।

অপহৃত স্কুল ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে মেয়েকে উদ্ধারের জন্য লম্পট নওশাদ অরফে হৃদয় চৌধুরীর বাবা, বড় ভাই ও অপর ২ জন সহ ৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেন।

এসআই আতিক জানান, অভিযোগের প্রেক্ষিতে তথ্য ও প্রযুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে গত ১০ এপ্রিল ছাত্রীটিকে কৌশলে উদ্ধার করে মোহনপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে সোপর্দ করেছি।

মোহনপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ মজিদুল ইসলাম জানান, স্কুল ছাত্রীর বয়স ১৪ বছর ২মাস সে প্রেমিকের সাথে বিয়ে হয়েছে বলে দাবি করেছে। তিনি লিজাকে থানায় না পাঠিয়ে তার বাবার জিম্মায় হস্তান্তর করেছেন।

অপহৃত স্কুল ছাত্রী জানায়, তাকে কেউ অপহরন করেনি, সে সেচ্ছায় চকমহাদেব গ্রামের হযরত আলীর ছেলে নওশাদ অরফে হৃদয় চৌধুরীর সাথে ১৫ দিন আগে ঘর বাধার স্বপ্ন নিয়ে চট্টগ্রামে গিয়েছিল।

বীরগঞ্জ থানার ওসি সাকিলা পারভীন জানান, আমি নুতন এসেছি-এই মুহুর্তে উদ্ধারকারী অফিসার নাই তিনি থানায় ফিরে আসলে বিষয়টি খোজ নিয়ে জানাবো।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য