সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কর নিকটবর্তী পূর্ব গৌতার সর্বশেষ বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত শহর দৌমা ছাড়তে শুরু করেছে জইশ আল ইসলামের বিদ্রোহীরা।

রাশিয়ার মধ্যস্থতায় হওয়া চুক্তি অনুযায়ী অবরুদ্ধ শহরটির কয়েক হাজার বিদ্রোহী শহরটি ছাড়তে রাজি হয়েছে বলে জানিয়েছে সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম।

এর প্রথম পর্বে রোববার একদল বিদ্রোহী শহরটি ছেড়ে যায় বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

একটি বাসে কয়েক ডজন বিদ্রোহী যোদ্ধা ও তাদের পরিবার শহরটি ছেড়ে সিরিয়ায় উত্তরাঞ্চলে সরকারবিরোধীদের নিয়ন্ত্রিত এলাকায় উদ্দেশ্যে রওনা হয়। জইশ আল ইসলামের যোদ্ধাদের দৌমা ছেড়ে সেখানে পৌঁছতে কয়েকদিন লেগে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

চুক্তি অনুযায়ী দৌমায় জইশ আল ইসলামের হাতে জিম্মি থাকা সরকার পক্ষের বন্দিদেরও মুক্তি দেওয়া হয়। সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে সম্প্রচারিত ফুটেজে দেখা গেছে, ওই দিনই মুক্ত জিম্মিদের প্রথম দলটি সেনাবাহিনী নিয়ন্ত্রিত একটি ক্রসিংয়ে হাজির হয়েছে। দলটি পৌঁছানোর পরপরই সেখানে অপেক্ষমান তাদের কয়েকশত স্বজন উল্লাসে ফেঁটে পড়ে তাদের স্বাগত জানায়।

রোববার স্বাক্ষরিত চুক্তিটিতে জইশ আল ইসলাম যোদ্ধাদের নিরাপদে দৌমা ছেড়ে যাওয়ার বিনিময়ে বিদ্রোহী গোষ্ঠীটির হাতে বন্দি কয়েকশত জিম্মি ও যুদ্ধবন্দিকে মুক্তি দেওয়ার বিষয়ে সমঝোতা হয়েছে।

বিদ্রোহী পক্ষের মধ্যস্থতাকারীরা জানিয়েছেন, রাশিয়ার সামরিক পুলিশ চুক্তি বাস্তবায়নের বিষয়টি তদরক করবে এবং এই উদ্দেশ্যে তারা দৌমায় প্রবেশ করবে।

রয়টার্স জানিয়েছে, ২০১৬-র ডিসেম্বরে আলেপ্পো থেকে বিদ্রোহীদের হটিয়ে দেওয়ার পর বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের সবচেয়ে বড় জয়গুলোর একটি এই চুক্তির মাধ্যমে সূচিত হয়েছে; তবে এরপরও সিরিয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের উল্লেখযোগ্য এলাকা বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রণে রয়ে গেছে।

সাত সপ্তাহ আগে রাজধানী দামেস্ক সংলগ্ন বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রিত পূর্ব গৌতা অঞ্চল পুনরুদ্ধারে ব্যাপক অভিযান শুরু করেছিল সিরীয় সরকার। উদ্ধারকারী ও পর্যবেক্ষণকারী গোষ্ঠীগুলোর তথ্যানুযায়ী, এই অভিযানে এক হাজার ৬০০ জনেরও বেশি লোক নিহত হয়েছেন।

শনিবার দৌমায় বিষাক্ত গ্যাস হামলা চালানো হয়েছে এবং তাতে কয়েক ডজন লোক নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছিল চিকিৎসা ত্রাণের সঙ্গে জড়িত গোষ্ঠীগুলো। হামলার জন্য দামেস্ককে দায়ী করেছিল জইশ আল ইসলাম। কিন্তু এ ধরনের কোনো হামলা চালানোর কথা অস্বীকার করেছে দামেস্ক।

সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম সরকারি এক সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে, চুক্তি অনুযায়ী জইশ আল ইসলামের যোদ্ধারা ৪৮ ঘন্টার মধ্যে দৌমা ছেড়ে তুরস্কের সীমান্তের নিকটবর্তী উত্তরাঞ্চলীয় শহর জারাবলুসে উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে যাবে।

রাশিয়ার বার্তা সংস্থা আরআইএ এক নিরাপত্তা সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে, পরবর্তী কয়েক ঘন্টার মধ্যে জইশ আল ইসলামের বিদ্রোহীরা দুটি দলে বিভক্ত হয়ে দৌমা ছেড়ে যাবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য