হুমকি উপেক্ষা করে ভূমি দিবসের কর্মসূচির খবর সংগ্রহ গিয়ে ইসরায়লি সেনাবাহিনীর গুলিতে গাজা উপত্যকায় প্রাণ হারিয়েছে সাংবাদিকেরাও। এদিন ইসরায়লি গুলিতে নিহত হয়েছে ৯ ফিলিস্তিনি। মারণাস্ত্রের বিপরীতে পাথর ছুঁড়ে প্রতিহত করতে গিয়ে আহত হয়েছে আরও সহস্রাধিক ফিলিস্তিনি।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় শুক্রবারের সংঘর্ষে সাত জনের মৃত্যুর খবর দিলেও ইসরায়ৈলের সংবাদমাধ্যম হারেৎজের খবরে বলা হয়েছে সংঘর্ষের সময় আহত এক সাংবাদিকসহ অপর একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার নিহত হয়েছেন।

এনিয়ে ভূমি দিবসের কর্মসূচিতে নিহতের সংখ্যা দাঁড়ালো ২৯জনে। নিরস্ত্র বিক্ষোভকারীদের হত্যার ঘটনায় ইসরায়েলের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ তৈরির আহ্বান জানিয়েছেন ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস।

ভূমি দিবস উপলক্ষে ফিলিস্তিনিদের টানা ছয় সপ্তাহের বিক্ষোভের দ্বিতীয় পর্বে শুক্রবার দিন জোরালো বিক্ষোভের কর্মসূচি সফল করতে আগে থেকেই প্রস্তুতি নেয় ফিলিস্তিনিরা। ইসরায়েলি প্রতিরক্ষামন্ত্রী আভিগদর লিবারম্যান বৃহস্পতিবারই গুলি ছোড়া অব্যাহত রাখার হুমকি দিয়ে রাখেন।

এদিন তিনি বলেন, ফিলিস্তিনি বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীর অভ্যন্তরীণ নীতিমালায় পরিবর্তন আনার কোনও ইচ্ছে নেই। ইসরায়েলের সরকারি রেডিওতে তিনি বলেন, ‘কোনও ধরনের উত্তেজনা দেখা গেলে গত সপ্তাহের মতো করেই কঠোরভাবে জবাব দেওয়া হবে।’ওই সপ্তাহে ইসরায়লি বাহিনীর গুলিতে প্রাণ হারিয়েছিলেন ১৭ ফিলিস্তিনি।

হারেৎজের খবরে বলা হয়েছে, প্রেস লেখা জ্যাকেট পরে গাজা উপত্যকায় সংবাদ সংগ্রহের সময় ইসরায়েলের সেনাবাহিনীর গুলিতে আহত হন সাংবাদিক ইয়াসির মুর্তজা। শনিবার হাসপাতালে প্রাণ হারিয়েছেন তিনি। ফিলিফিস্তিনি সাংবাদিক সিন্ডিকেটের তরফে বলা হয়েছে এদিন ইসরায়েলের গুলিতের আগত হয়েছেন আরও ছয় সাংবাদিক। তারা সবাই প্রেস লেখা জ্যাকেট পরে সেখানে সংবাদ সংগ্রহ করছিলেন।

ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গাজা সীমান্তে এদিন ইসরায়েলের ছোঁড়া গুলিতে ২৯৩ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। এদের মধ্যে ২৫ জনের শরীরের মাথা বা উপরের অংশে গুলিবিদ্ধ হয়েছে। আরও সহস্রাধিক মানুষ টিয়ার গ্যাস ও অন্য ছোটখাট আহত হয়েছে।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় নিহত নয় ফিলিস্তিনির নাম প্রকাশ করেছে। তারা হলো ওসামা খামিস (৩৮), মাজদি সাবত, হুওসেইন মোহাম্মদ মাদি (১৬), সুবি আবু আতওয়াই (২০), মো. সায়িদ আল-হাজ (৩৩), সোদকি ফারাজ আবু আতওয়াই (৪৫), আলা আদিন আজমালি (১৭)। এছাড়া শনিবার নিহত হয়েছেন হামজা আবদ আল-আল (২০) ও সাংবাদিক ইয়াসির মুর্তজা (৩০)।ফিলিফিস্তিনি সাংবাদিক সিন্ডিকেট জানিয়েছে, গাজা সীমান্ত বেড়া থেকে ৩৫০ মিটার দূরে প্রেস লেখা জ্যাকেট পরে খথবর সংগ্রহের সময় গুলিবিদ্ধ হন মুর্তজা।

ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস শনিবার এক বিবৃতিতে ইসরায়েলের হত্যা ও নিপীড়নের নিন্দা জানিয়েছেন। এছাড়া তিনি জাতিসংঘে নিযুক্ত ফিলিস্তিনি দূত, আরব লীগ ও ইউরোপীয় ইউনিয়নে ফিলিস্তিনি প্রতিনিধিদের ইসরায়েলের চালানো সন্ত্রাস, ও নিরস্ত্র বিক্ষোভকারীদের হত্যার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের চাপ সৃষ্টির আহ্বান জানিয়েছেন।

ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা বাহিনীর মুখপাত্র রনেন ম্যানালিস দাবি করেছেন, শুক্রবার গাজা সীমান্তের পাঁচটি স্থানে ২০ হাজার ফিলিস্তিনি বিক্ষোভকারী জড়ো হয়। এসব বিক্ষোভকারীরা ইসরায়েলের সীমান্ত বেড়া লক্ষ্য করে পাথর ও ফায়ারবোমা ছুঁড়েছে। এই সেনা মুখপাত্রের দাবি অবৈধভাবে ইসরায়েলের ভূখন্ডে প্রবেশের বেশ কয়েকটি চেষ্টা তারা প্রতিহত করেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য