যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যে ভিডিও শেয়ারিং-এর সামাজিক মাধ্যম ইউটিউবের প্রধান কার্যালয়ে হামলা চালিয়েছে এক নারী বন্দুকধারী। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার (৩ এপ্রিল) বিকেল চারটার দিকে একের পর এক গুলির শব্দে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে গোটা এলাকায়।

পরে সেই নারী বন্দুকধারী আত্মঘাতী হয়েছে বলে দাবি করেছে পুলিশ। আহত অন্তত চারজনকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের অবস্থা সম্পর্কে জানা যায়নি। ঘটনাস্থল ঘিরে রেখেছে পুলিশ। ইউটিউবের মালিক প্রতিষ্ঠান গুগল ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছে। তারা জানিয়েছে, গোলাগুলির ঘটনায় তারা তদন্ত শুরু করেছে। এ ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে।

ইউটিউবের সদর দফতর ক্যালিফোর্নিয়ার সান ব্রুনোতে অবস্থিত। ঘটনাস্থল থেকে যেসব ভিডিও ফুটেজ পাওয়া গেছে তাতে দেখা যাচ্ছে, সান ব্রুনো কার্যালয়ে হঠাৎ করে গোলাগুলির শব্দ শোনার পর কর্মীরা বিভিন্ন দিকে পালাতে শুরু করে। এরপর পুলিশ সদর দফতরের চারদিকে অবস্থান নেয়।

ইউটিউবের এই কার্যালয়ে প্রায় ১৭০০ কর্মী কাজ করে। স্থানীয় টেলিভিশনের ছবিতে দেখা যাচ্ছে, অনেকে বিভিন্ন ভবন থেকে মাথার ওপর হাত উঁচু করে বেরিয়ে আসছে। ইউটিউব কার্যালয়ে বেশ কয়েকটি অ্যাম্বুলেন্স যেতে দেখা গেছে।

মানুষজনকে ওই এলাকা থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দিয়েছে পুলিশ। ভবন থেকে দ্রুত পালাতে গিয়েও অনেকে আহত হয়েছেন। স্থানীয় টেলিভিশনের ছবিতে দেখা যায়, অনেকে বিভিন্ন ভবন থেকে মাথার ওপর হাত উঁচু করে বেরিয়ে আসছেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বরাত দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের এনবিসি অবশ্য জানিয়েছে, পুলিশের গুলিতে হামলাকারী নারী ঘটনাস্থলে নিহত হয়েছে। সান ব্রুনোর পুলিশ প্রধান এড বারবেরিনি জানান, সদর দফতরের ভবন থেকে সন্দেহভাজন হামলাকারী নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তার পরিচয় জানা যায়নি। এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘আমাদের ধারণা, নিজের আঘাতে নিহত নারীই হামলাকারী।’

আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে তাদের অবস্থা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে বার্তা সংস্থা এপি জানিয়েছে, সান ফ্রান্সিসকো জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা আহতদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তার বয়স ৩৬ বছর। আহত ৩২ বছরের এক নারীর অবস্থাও খারাপ। আহত অন্যজনের বয়স ২৭ বছর। তবে আহতদের পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য