শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষা সব ঋতুতেই সানব্লক বা সানস্ক্রিন ব্যবহার করা অতি জরুরি। এখন যেহেতু সূর্যের তাপ অনেক প্রখর তাই যেন এর প্রয়োজনীয়তা একটু বেশি। প্রখর সূর্যালোক আমাদের ত্বকের জন্য ক্ষতিকর। সূর্যের রশ্মিতে রয়েছে ইউভি-এ, ইউভি-বি, ইউভি-সি। ইউভি-এ ও ইউভি-বি ত্বকের গভীরে প্রবেশ করে এবং ত্বকের নানা ধরনের ক্ষতি করে। সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি ত্বকের কোষ, কোলাজেন, লেসিথিন ফাইবার ক্ষতিগ্রস্ত করে, ত্বকে বলি রেখা সৃষ্টি করে, ফ্রিকেলুস ও তিল তৈরি করে, এমনকি ত্বকে ক্যান্সারও হতে পারে।

সানব্লক বা সানস্ক্রিনে রয়েছে জিঙ্ক অক্সাইড, টাইটেনিয়াম অক্সাইড, প্যারাঅ্যামিনো বেঞ্জায়িক এসিড, পেডিমেট, সিনামেট, স্যালিসাইলেটস, অক্সিবেঞ্জন ইত্যাদি। এই সকল উপাদান সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মিকে ত্বকে প্রবেশ করতে বাধা দেয়। সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত সূর্যের যে রশ্মি থাকে তা আমাদের ত্বকের জন্য ক্ষতিকর।

আকাশ মেঘলা থাকলেও প্রতিদিন বাইরে যাওয়ার আগে সানব্লক বা সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে হবে। অনেকক্ষণ বাইরে থাকতে হলে দুই/তিন ঘন্টা পরপর পুনরায় ব্যবহার করতে হবে। মেকআপ করতে চাইলে আগে সানব্লক লাগিয়ে তার ২০ মিনিট পর মেকআপ বা অন্য প্রসাধনী ব্যবহার করা যাবে।

সানব্লক কেনার পূর্বে এর এসপিএফ (সান প্রোটেকশন ফ্যাক্টর) দেখে নিতে হবে। সানব্লক বা সানস্ক্রিন মেখে ত্বক কতক্ষণ সূর্যের আলো থেকে সুরক্ষিত থাকবে, তার হিসেবে এসপিএফ থেকে পাওয়া যায়। এসপিএফ-৩০ থেকে এসপিএফ -৫০ পর্যন্ত ব্যবহার করা ভালো।

তবে সূর্যের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে ত্বককে রক্ষা করতে হলে মহিলা-পুরুষ, ছোট-বড় সকলের উচিত সানব্লক বা সানস্ক্রিন ব্যবহার করা। সানব্লক বা সানস্ক্রিন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে ত্বকের ধরন অনুযায়ী ব্যবহার করা ভালো।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য