পাকিস্তানের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলে এক খ্রিস্টান পরিবারের ওপর হামলা ও পরিবারটির চার সদস্যকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস) ।

সোমবার বেলুচিস্তানের কোয়েটায় থাকা স্বজনদের দেখতে এসে ওই পরিবারটি জঙ্গি হামলার শিকার হয় বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

মঙ্গলবার দেওয়া বিবৃতিতে আইএস বলেছে, তাদের সদস্যদের চালানো গুলিতেই ওই খ্রিস্টান পরিবারটির চার সদস্য নিহত হয়েছেন।

আফগানিস্তান ও পাকিস্তানে বিদ্যমান বিভিন্ন জঙ্গিগোষ্ঠী থেকে সদস্য সংগ্রহ করে দেশ দুটিতে কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছে আইএস। জঙ্গিগোষ্ঠীটি বিশ্বজুড়ে অমুসলিম ও শিয়াদের বিরুদ্ধে ধারাবাহিক সন্ত্রাসী আক্রমণ চালিয়ে আসছে।

কোয়েটায় হামলার সময় ওই পরিবারটির সদস্যরা রিকশায় করে যাচ্ছিলেন। মোটরসাইকেলে আসা হত্যাকারীরা তাদের গতিরোধ করে গুলি চালায়।

নিহতরা কোয়েটার শাহজামান সড়ক এলাকায় বসবাসরত স্বজনদের কাছে যাচ্ছিলেন। শহরটির এ এলাকায় বসবাসকারীদের অধিকাংশই খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের লোক।

প্রাদেশিক পুলিশের কর্মকর্তা মোয়াজ্জেম জাহ আনসারি রয়টার্সকে বলেছেন, “সন্ত্রাসী এই কাজটিকে পরিকল্পিত হামলা বলে মনে করছি আমরা।”

রোববার খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের ইস্টার পরবের পরদিনই এ হামলার ঘটনাটি ঘটলো। ২০ কোটি ৮০ লাখ জনসংখ্যার পাকিস্তানের প্রায় দুই শতাংশ লোক খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী।

গত বছরের ডিসেম্বরে, বড়দিনের উৎসবের সপ্তাহখানেক আগে দক্ষিণ-পশ্চিম পাকিস্তানের একটি গির্জায় দুই আত্মঘাতী বোমারুর হামলায় অন্তত ১০ জন নিহত ও ৫৬জন আহত হয়েছিলেন। ওই হামলারও দায় স্বীকার করেছিল আইএস।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য