আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে আযান না দেয়ার কারণে মাত্র এক ঘন্টা বয়সি নবজাতক এক শিশু সন্তানকে মাটিতে আছড়িয়ে হত্যা করেছে এক পাষন্ড বাবা। হন্তারক সাজু মিয়াকে (৩১) স্থানীয়রা হাতে-নাতে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

এ লোমহর্ষক চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে রোববার রাতে সদরের ঘোড়াঘাট সড়কে অবস্থিত ‘মা’ ক্লিনিক এন্ড নার্সিং হোম নামে ক্লিনিকে।

ক্লিনিকে প্রত্যক্ষদর্শী ও তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কামদিয়া ইউনিয়নের তুলট গ্রামের শাহা মিয়ার ডিগ্রী পাস মেয়ে শাহনাজ বেগম সাহেরা’র (৩৫) সাথে গত তিন বছর আগে একই উপজেলার শাখাহার ইউপির মোল্লাপাড়া গ্রামের সুলতান সরকারের ছেলে পেশায় রং-মিস্ত্রি কোরআন পড়ুয়া হাফেজ সাজু মিয়ার বিয়ে হয়।

বিয়ের পর দাম্পত্যজীবন কিছুদিন সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যে কাটলেও স্বামী-স্ত্রী পরস্পর বয়সের পার্থক্য, শিক্ষাগত যোগ্যতা পারিবারিক স্বচ্ছলতা ও সাহেরার নৈতিক চরিত্রসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তাদের নানা অশান্তির সৃষ্টি হয়।

এরই মধ্যে সাহেরা অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। সময়ের ব্যবধানে সাহেরার সন্তান প্রসবের সময় ঘনিয়ে আসে।

রোববার বিকেলে প্রসব বেদনা শুরু হলে সাজুর পরিবার সন্ধ্যার দিকে অসুস্থ সাহেরাকে ওই ক্লিনিকে ভর্তি করে। রাত সাড়ে ৯ টার দিকে সিজারিয়ানের মাধ্যমে সাহেরার কোলজুড়ে ফুঁট-ফুঁটে এক ছেলে সন্তানের জন্ম হয়।

এসময় সাহেরা অচেতন থাকায় তার ভাবী কোহিনুর বেগম সদ্য প্রসূত শিশুটিকে দেখভাল করতে থাকে। রাত সাড়ে ১০টার দিকে জ্ঞান ফিরে পেলে ভাবীর কোলে থাকা তার শিশু সন্দানকে পরম মাতৃস্নেহে শরীরে হাত বুলাতে থাকে।

এক পর্যায়ে পাষন্ড বাবা হাফেজ সাজু মিয়া কোহিনুরের নিকট থেকে সন্তানকে তার কোলে নিয়ে জানতে চায় সন্তান ভূমিষ্ঠের সাথে-সাথে আযান দেয়া হয়েছে কি-না? এসময় পরিবারের লোকজন নিশ্চুপ নীরব থাকায় কিছু বুঝে উঠার আগেই মূহুত্বের মধ্যে শিশুটিকে উপরে তুলে ক্লিনিকের মেঝেতে সজোরে আছার দেন। সাথে-সাথেই ঘটনাস্থলেই নিষ্পাপ শিশুটির মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটে।

এদিকে কিং কর্তব্য বিমূঢ় ক্লিনিকে থাকা লোকজন এসময় হাতে-নাতে সাজুকে আটক করে থানায় খবর দেন। পরে হন্তারক বাবাকে পুলিশের নিকট সোপর্দ করা হয়। সুরতহাল রিপোর্ট শেষে নিহত শিশুর লাশ থানা হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

শিশু সন্তানকে নির্মমভাবে হত্যার অপরাধে হন্তারক পাষন্ড বাবা সাজুকে আসামী করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে। ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য