দিবালোক সংরক্ষণ বা ডে লাইট সেভিং পদ্ধতিতে আজ থেকে স্পেনের ঘড়ির কাঁটা এক ঘণ্টা এগিয়ে নেয়া হয়েছে। স্পেনের সময় রাত ২টায় এক ঘণ্টা এগিয়ে নেয়ার মাধ্যমে সময়ের এ পরিবর্তন করা হয়েছে। ফলে বাংলাদেশের সঙ্গে পাঁচ ঘণ্টার পরিবর্তে এখন স্পেনের সময়ের ব্যবধান চার ঘণ্টা। দিবালোক সংরক্ষণের এ পদ্ধতির আজ প্রথম দিনে তাই এক ঘণ্টা কম ঘুমিয়েছে লাখ লাখ স্পেনবাসী।

এরই ধারাবাহিকতায় স্থানীয় সময় শনিবার দিবাগত রাত ২টায় (২৫ মার্চ) পরিবর্তন হবে। ঘড়িতে যখন রাত ২টা বাজবে তখন এক ঘণ্টা এগিয়ে রাত ৩টা করা হবে। প্রতি বছর দেশটিতে দুইবার ঘড়ির কাঁটা এক ঘণ্টা করে পরিবর্তন করা হয়।

দিবালোক সঞ্চয় করতে প্রতি গ্রীষ্ম ও শীতকালে সূর্যাস্ত এবং সূর্যোদয়ের ওপর এক ঘণ্টা পরিবর্তন করা হয়। এর আগে গত বছর ২৬ মার্চ ঘড়ির কাঁটা এক ঘণ্টা বাড়ানো হয়েছিল। একইভাবে ২৯ অক্টোবর শীতকালে এক ঘণ্টা পেছানো হয়। সময়ের পরিবর্তন ইউরোপের কয়েকটি দেশসহ আরো দুয়েকটি দেশে পরিবর্তন হয়ে থাকে। নিয়মানুসারে বছরের প্রথম তিন মাসের শেষ দিকে এবং বছর শেষ হওয়ার দুই মাস আগে এ সময় পরিবর্তন করা হয়ে থাকে।

বিশ্বের অন্যান্য অনেক দেশের মতোই গ্রীষ্মকাল শুরুর আগেই দিবালোক সংরক্ষণ চালুর প্রচলন রয়েছে স্পেনে। গ্রীষ্মকালে সময়ের ব্যবধান হয় চার ঘন্টা আর শীতেকালে পাঁচ ঘন্টা। এই ধারাতেই এ বছর এক ঘণ্টা এগিয়ে গেছে ঘড়ির কাঁটা। স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদসহ বার্সেলোনা, মালাগা, আলিকান্তে, মুরছিয়া, সেভিলা, গ্রানাদা ও কর্দোভাসহ বিভিন্ন শহরে ও এ পরিবর্তন হয়েছে।

আগামী বছরের ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে এ ডে লাইট সেভিং পদ্ধতি। দিনের আলো সংরক্ষণ করতে দিনের আলোতেই কর্মঘণ্টা শেষ করার লক্ষ্যে এ পদ্ধতির ব্যবহার করা হয়। পরিবর্তিত সময়ের সঙ্গে প্রয়োজনীয় কার্যাবলী নির্ধারণ করতে হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য