ভারতের রাজনৈতিক দল কংগ্রেস ও বিজেপি সম্ভবত লন্ডনভিত্তিক তথ্য বিশ্লেষণকারী প্রতিষ্ঠান কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার ভারতীয় শাখার গ্রাহক।

তাদের হাতে আসা ইলেকট্রনিক রেকর্ডস ও নথি অন্তত তাই বলছে বলে দাবি ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির।

তবে কংগ্রেস ও বিজেপি, উভয় দলই ওই প্রতিষ্ঠান থেকে কোনো ধরনের সেবা নেওয়ার কথা অস্বীকার করেছে।

বুধবার ভারতের কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রী রবি শঙ্কর প্রসাদ অভিযোগ করে বলেছেন, ওই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কংগ্রেসের যোগাযোগ আছে।

তিনি বলেন, “আমরা সংবাদপত্রের স্বাধীনতাকে সমর্থন করি কিন্তু নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অপব্যবহার পছন্দ করি না। আইটি ও আইনমন্ত্রী হিসেবে আমার এটি পরিষ্কার করা দরকার ছিল।”

অপরদিকে কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার কোনো সেবা তাদের দল কখনো নেয়নি বলে দাবি করেছেন কংগ্রেসের মুখপাত্র রনদ্বীপ সুর্যেওয়ালা।

কিন্তু কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার অধিভুক্ত ভারতীয় প্রতিষ্ঠান ওভলেনো বিজনেস ইন্টিলিজেন্স (ওবিআই) বিজেপি, কংগ্রেস এবং নীতিশ কুমারের জনতা দলকে (সংযুক্ত) তাদের গ্রাহক হিসেবে উল্লেখ করেছে।

ওভলেনোর পরিচালক অমরিশ তিয়াগি জনতা দলের (সংযুক্ত) নেতা কে সি তিয়াগির পুত্র।

ওভলেনো নিজেদের এসসিআই ভারত ও এসসিএল গ্রুপ লন্ডনের যৌথ উদ্যোগের অংশ বলে বর্ণনা করেছে। কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা এসসিএল গ্রুপেরই একটি প্রতিষ্ঠান।

বিষয়গুলো সামনে আসার পর থেকে ওভলেনোর ওয়েবসাইটটি বন্ধ করে রাখা হয়েছে।

এনডিটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে অমরিশ তিয়াগি জানিয়েছেন, তাদের প্রতিষ্ঠান ২০১২ সালে উত্তর প্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির হয়ে কাজ করেছিল এবং ২০১০ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত ঝাড়খান্ডে যুব কংগ্রেসের জন্য কাজ করেছিল।

কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার (সিএ) ওয়েবসাইট জানিয়েছে, তারা ২০১০ সালে বিহারের নির্বাচনের সময় ভারতের একটি রাজনৈতিক দলের হয়ে কাজ করেছিল।

ওয়েবসাইটটিতে বলা হয়েছে, “আমাদের ক্লায়েন্ট বিশাল জয় পেয়েছিল, সিএ-র লক্ষ্যস্থির করা মোট আসনের ৯০ শতাংশতেই জয়ে এসেছিল।”

উল্লেখিত নির্বাচনগুলোতে জনতা দল (সংযুক্ত)-বিজেপি জোট বিপুল জয় পেয়েছিল বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

এছাড়াও ওভলেনোর অন্যতম পরিচালক হিমানশু শর্মার লিঙ্কডইন পেইজের বক্তব্যে বলা হয়েছে, ‘ক্ষমতাসীন বিজেপির পক্ষে সফলভাবে চারটি নির্বাচন সামলেছেন’ তিনি এবং ‘লক্ষ্যস্থির করা ২৭২টি আসন অর্জন করেছেন’।

শর্মা ২০১৩ সাল থেকে ওভলোনোর সঙ্গে আছেন বলে পেইজটিতে উল্লেখ ছিল বলে জানিয়েছে এনডিটিভি। কিন্তু শর্মার লিঙ্কডইন পেইজ থেকে এখন বিজেপি সংশ্লিষ্ট তথ্যগুলো মুছে ফেলা হয়েছে বলে ভাষ্য এনডিটিভির।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য