ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে শ্রমিক নিয়োগকে কেন্দ্র করে, চরম ক্ষাভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে, খনির কারনে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাবাসীদের মাঝে।

আজ বুধবার সকাল ১০ টায় খনিতে (অস্থায়ী পদে) শ্রমিক নিয়োগ করতে গেলে, খনির কারনে ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের মাঝে এই ক্ষোভ ও উত্তেজনা দেখা দেয়। গ্রামবাসীরা শ্রমিক নিয়োগ কার্য্যক্রম বন্ধ করার দাবীতে সকাল ১১ টায় খনির প্রধান গেট বন্ধ করে দেয়।

এদিকে গ্রামবাসীরা প্রতিরোধ ও বিক্ষোভ করায়, শ্রমিক নিয়োগ কার্য্যক্রম সাময়িক ভাবে বন্ধ করেছে খনিটির ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সিএমসি।

ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের সংগঠন জিবন সম্পদ ও পরিবেশ রক্ষা কমিটির আহবায়ক মশিউর রহমান বুলবুল বলেন, তাদের আন্দোলনের প্রধান দাবী ছিল ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের যোগ্যতার ভিত্তিতে খনিতে চাকুরী দেয়া, কিন্তু গতকাল বুধবার হঠাৎ খনি কর্তৃপক্ষ গ্রামবাসীদের পাশকাটিয়ে বাহির থেকে লোক এনে খনিতে শ্রমিক পদে চাকুরী দিচ্ছে, এই কারনে তারা খনির প্রধান গেট বন্ধ করে দিয়েছে।

বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানী লিঃ এর মহা-ব্যবস্থাপক (মাইনিং) নুরুজ্জামান চৌধুরী বলেন, বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানীর লিঃ এর চিনা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সিএমসি। খনির ভূ-গর্বে কাজ করার জন্য দৈনিক হাজিরা ভিত্তিতে শ্রমিক নিয়োগে প্রাথমিক কার্য্যক্রম শুরু করে। এরই মধ্যে খনির ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার বাসীন্দারা সেই কার্য্যক্রমে বাধা দেয়ার, শ্রমিক নিয়োগ কার্য্যক্রম চিনা কর্তৃপক্ষ সাময়ীক ভাবে বন্ধ করে দেয়।

বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানী লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী হাবিব উদ্দিন আহম্মদ বলেন, বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানী লিঃ (বিসিএমসিএল) কোন প্রকার শ্রমিক নিয়োগ করছেনা। খনিটির চিনা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এসএমসি খনির ভূ-গর্বে কাজ করার জন্য অস্থায়ী শ্রমিক নিয়োগ করছে, এখানে খনি কর্তৃপক্ষের কোন দায় নেই।

এদিকে ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের অভিযোগ চিনা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান শ্রমিক নিয়োগ করলেও, শ্রমিক পদে কাকে কাকে নিয়োগ দেয়া হবে সেই তালিকা বিসিএমসিএল এর কর্মকর্তারায় নিদ্ধারন করছে, এই কারনে গ্রামবাসীদের পাশ কাটিয়ে শ্রমিক নিয়োগ দেয়ায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের মাঝে, তারা কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি হাতে নিচ্ছেন বলে একাধিক গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য