দেশের ইতিহাসে প্রথমবারেরমত গ্রাম বাংলার চারণ কবি, সাধক, বাউল, সাধু, গুরু, বৈস্মবগণ এর অংশগ্রহণে “গানেই জ্ঞান- সুরেই প্রেম- কর্মেই ফল” এ প্রতিপাদ্যকে ঘিরে ৩ দিন ব্যাপী চারণ কবি উৎসব-২০১৮ এর সমাপ্তি ঘটেছে। গত শুক্রবার সকাল ৮ টা থেকে রবিবার রাত পর্যন্ত কবি গান, বাউল গান, জারি গান, বিচ্ছেদ গানের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। শেষে রবিবার রাতে অনুসন্ধান নামের নাটক মঞ্চ্যস্থের মাধ্যমে এই চারণ কবি উৎসবের সমাপনী ঘটে।

সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি। বাংলাদেশ চারণ কবি সংঘের সভাপতি এম এ কুদ্দুস সরকারের সভাপতিত্বে এবং সাধারন সম্পাদক ক্ষিতিশ চন্দ্র সরকারের সঞ্চালনায় সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিরল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান, সহ-সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ্ব সবুজার সিদ্দিক সাগর, যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক রমা কান্ত রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান এ্যাড. রবিউল ইসলাম, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মোশারফ হোসেন, বোচাগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আফসার আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক শামীম হোসেন, বিরল উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আবদুল মালেক, সাধারণ সম্পাদক মোছাদ্দেক হোসেন, স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম, ছাত্রলীগের সভাপতি সারওয়অরুল ইসলাম রাসেল, সাধারণ সম্পাদক মিঠুন কুমার রায় প্রমুখ।

৩ (তিন) দিনব্যাপী চারণ কবি উৎসবে সারাদেশের ৫০৪ জনের মধ্যে চারণ কবির ১০২ টি দল, বাউল ৪৪ টি ও সাধু গুরু বৈস্মব ৯২ টি দল অংশগ্রহণ করেন। এছাড়াও উৎসবে কবি ও বাউল গানের প্রতিযোগিতা এবং ঢুলি (বাদক)দের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। বিচারকে দায়িত্বে পালন করেন সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব বাবু কান্তেস্বর রায়, প্রবীণ চারণ কবি আজিমুদ্দীন সরকার ও নির্মল কুমার সরকার।

এদের মধ্যে কবি গান প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করেন বাংলাদেশ চারনণ কবি সংঘের সভাপতি এম এ কুদ্দুস সরকার, দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেন কার্যনির্বাহী সদস্য মুক্তি রাণী সরকার এবং তৃতীয় স্থান অধিকার করেন নবাগত সাধারণ সদস্য সোমা রাণী সরকার।
বাউল প্রতিযোগিতায় প্রথমস্থান অধিকার করেন আব্দুর রহমান বয়াতী, দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেন ফরমান আলী বয়াতী এবং তৃতীয় স্থান অধিকার করেন আবু সাঈদ বয়াতী।
ঢুলিদের মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করে ঢুলি (বাদক) বিশ্বজিৎ রায়, দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেন সদু ভুঞ্জার এবং তৃতীয় স্থান অধিকার করেন পরিমল চন্দ্র।

চারণ কবি উৎসবের শুরুর দিনে থেকে সমাপনী অনুষ্ঠান পর্যন্ত দর্শক-শ্রোতার ছিল উপচে পড়া ভীড়। গায়কদের সুরের মুর্ছনায় উদ্বেলিত ও আন্দোলিত হয় দর্শক-শ্রোতাগণ। দর্শক সারিতে দর্শকের নিস্তব্ধতার চিত্র ছিল দিনাজপুরের বিরল উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চত্বরে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ চারণ কবি উৎসব অনুষ্ঠান স্থল।

উৎসবের দ্বিতীয় দিন শনিবার রাতে মনোজ্ঞ পালা গানে অনুষ্ঠান মাতিয়ে তুলেন বাংলাদেশ জাতীয় বাউল সমিতি ফাউন্ডেশন এর সভাপতি প্রখ্যাত বাউল শিল্পী লতিফ সরকার। তাঁর সাথে প্রতিদ্বন্দ¦ীতায় অংশনেন বাংলাদেশ জাতীয় বাউল সমিতি ফাউন্ডেশন এর অন্যতম সদস্য দেওয়ান বাবলী সরকার। তাঁদের মনোমুগ্ধকর পরিবেশনায় রাতে হাজার হাজার দর্শক ¯্রােতার মহামিলনে উৎসব প্রাণবন্ত হয়ে উঠে।

এর আগে, বাংলাদেশ চারণ কবি সংঘের আয়োজনে এবং বিরল প্রেসক্লাবের সহায়তায় শুক্রবার সকাল ৮ টায় জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে উৎসবের সূচনা করা হয়েছিল। বিরল পৌর মেয়র আলহাজ্ব সবুজার সিদ্দিক সাগর ৩ (তিন) দিন ব্যাপী চারণ কবি উৎসবের আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন ঘোষনা করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য