কোটা সংস্কারের আন্দোলনে পুলিশি হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) সাধারন শিক্ষার্থীরা।

গত ১৪ মার্চ ঢাকায় কোটা সংস্কারের আন্দোলনে পুলিশি হামলার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কমিটির ডাকা কর্মসূচির অংশ হিসেবে এ কর্মসূচি পালন করে হাবিপ্রবি’র সাধারন শিক্ষার্থীরা।

রোববার সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের জিমনেশিয়ামের সামনে থেকে শুরু হয় এই বিক্ষোভ মিছিল এবং মানববন্ধন।

বিক্ষোভে তারা ‘বঙ্গবন্ধুর বাংলায়, বৈষম্যের ঠাঁই নাই’,”কোটা প্রথা নিপাত যাক, মেধাবীরা মুক্তি পাক “আমার ভাইরা গ্রেপ্তার কেন প্রশাসনের জবাব চাই’সহ নানা শ্লোগান দেয়।

বিক্ষোভ মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস ও সামনে রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক প্রদক্ষিণ করে জিমনেশিয়ামে এসে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

সাধারণ শিক্ষাথীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন হাবিপ্রবি সাংবাদিক সমিতির সভাপতি মুহিউদ্দিন নুর, সাধারন সম্পাদক তারিকুল ইসলাম, ওমর কায়েস, রকুনুজ্জামান, রাশেদ ইসলাম, দীপ সরকার, আবদুল মান্নান প্রমুখ।

এসময় তারা ঢাকায় পুলিশের করা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান এবং কোটা সংস্কারের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ দাবি করেন। বক্তারা কোটা সংস্কার বিষয়ক পাঁচ দফা দাবি তুলে ধরেন।

উল্লেখ্য, পাঁচ দফা দাবি হলো, কোটা ব্যবস্থার সংস্কার করে ৫৬ থেকে ১০শতাংশ এ আনতে হবে, কোটায় যোগ্য প্রার্থী না পাওয়া গেলে শূন্য পদগুলোতে মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ দিতে হবে, কোটা কোন ধরনের বিশেষ নিয়োগ পরীক্ষা নয়, চাকুরির নিয়োগ পরীক্ষায় কোটা সুবিধা একাধিকবার নয়, চাকুরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে সবার জন্য অভিন্ন বয়সসীমা করতে হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য