জাতীয় সংসদের ৩শ’ আসনের সীমানার খসড়া তালিকা প্রকাশ করেছে নির্বাচন কমিশন। ৩শ’ আসনের মধ্যে নীলফামারী জেলার মোট ৪টি আসনের মধ্যে ২টি আসনের সীমানায় পরিবর্তন এসেছে। এ বিষয়ে সম্প্রতি গেজেট প্রকাশ করেছে সংস্থাটি। তালিকা বিশ্লেষনে দেখা গেছে, আসনের সীমানা পরিবর্তনের ক্ষেত্রে নীলফামারীর উপজেলাগুলোকে অখন্ড রাখা হয়েছে।

খসড়া তালিকায় দেখা গেছে, নীলফামারী-৩ জলঢাকা আসনটির মধ্যে কিশোরগঞ্জের ৩ ইউনিয়ন এতদিন যুক্ত ছিলো। ইউনিয়ন ৩টি হলো রনচন্ডি, বড়ভিটা ও পুটিমারী। নীলফামারী-৪ আসনের সাথে ছিলো কিশোরগঞ্জের ৬ ইউনিয়ন। এগুলো হলো নিতাই, বাহাগিলি, চাঁদখানা, কিশোরগঞ্জ, গাড়াগ্রাম ও মাগুড়া ইউনিয়ন।

আসনের সীমানা পরিবর্তন আনা হচ্ছে। নীলফামারী-৩ আসনটি করা হচ্ছে শুধুই জলঢাকা উপজেলাকে নিয়ে, আর সৈয়দপুর এবং কিশোরগঞ্জ উপজেলার পুরো অংশ নিয়ে করা হচ্ছে নীলফামারী-৪ আসন। আগামী ১ এপ্রিল পর্যন্ত লিংকে দেয়া তালিকার উপর যে কোনো ব্যক্তি দাবি কিংবা আপত্তি দাখিল করতে পারবেন নির্বাচন কমিশনে।

দাবি আপত্তি নিষ্পত্তির পর আগামী ৩০ এপ্রিল পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করবে নির্বাচন কমিশন। প্রসঙ্গত, পূর্বের সীমানা অনুযায়ী জাতীয় সংসদের ১৫নং আসন নীলফামারী-৪ আসনটি নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলা এবং কিশোরগঞ্জ উপজেলার নিতাই, বাহাগিলি, চাঁদখানা, কিশোরগঞ্জ, গাড়াগ্রাম ও মাগুড়া ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত।

জাতীয় সংসদের ১৪নং আসন নীলফামারী-৩ আসনটি নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলা এবং কিশোরগঞ্জ উপজেলার রনচন্ডি, বড়ভিটা ও পুটিমারী ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত ছিলো। পরিবর্তনের ফলে এখন থেকে কিশোরগঞ্জ উপজেলাটির পুরো ৯টি ইউনিয়ন থাকছে নীলফামারী-৪ (সৈয়দপুর-কিশোরগঞ্জ) আসনে। এটি হলে নীলফামারী-৩ আসনের ভোটার সংখ্যা কমে যাবে এবং নীলফামারী-৪ আসনে ভোটার সংখ্যা বেড়ে যাবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য