রাত হলেই রাস্তাঘাট ঘুটঘুটে অন্ধকার, যেন হঠাৎ করেই বদলে গেল ঘোড়াঘাট পৌর শহরের চালচিত্র। গত ৬দিন থেকে এই টানা অন্ধকার।

শুধু ঘরবাড়ী দোকানপাট ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে জলছে বাতী ,রাত বাড়ার সাথে সাথে এক এক করে সেই বাতিগুলো নিবে গেলে নেমে আসে অন্ধকারের রাজত্ব।

আর এই রাজত্বে নতুন করে প্রাণ ফিরে পেয়েছে এলাকার চোর, নেশাখোর ও দুর্বৃত্তরা। গত ১০মার্চ শনিবার থেকে সারা দেশের পৌরসভার কর্মকর্তা/কর্মচারীরা সরকারী কোষাগার থেকে ১শত ভাগ বেতন বোনাসের দাবীতে ঢাকায জাতীয় প্রেসক্লাব চত্তরে লাগাতার আন্দোলন শুরু করেছে।

আর এই আন্দোলনে একাত্ব ঘোষনায় পৌরসভার সকল প্রকার সেবা কার্যক্রম বন্ধ করে রেখেছে ঘোড়াঘাট পৌরসভা। পৌর এলাকার সমস্ত রাস্তার লাইট সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে তারা ঢাকার পথে রওনা হয়।

এতে করে সাধারন জনগনের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ করা গেছে। ভুক্তভোগীরা বলছে সরকারের নিকট থেকে দাবী আদায় করতে যেয়ে জনগনকে ভোগান্তি দেওয়া হচ্ছে কেন।

সেদিন থেকে এলাকা ভুতুরে পরিবেশ সৃষ্টি করে চোর ডাকাতকে সুযোগ করে দেয়ার দায় দায়িত্ব কে নেবে। সচেতন মহলের দাবী, এমনিতেই পৌরসভার সকল প্রকার সেবা/কার্যক্রম বন্ধ তার উপর এলাকা অন্ধকারে নিমজ্জিত করা মরার উপর খারার ঘা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য