ভারতের বিজেপিশাসিত ছত্তিসগড়ে মাওবাদী হামলায় আধাসামরিক বাহিনী সিআরপিএফের ৯ জওয়ান নিহত ও ৬ জন আহত হয়েছেন। গণমাধ্যমের অন্য একটি সূত্রে প্রকাশ, কমপক্ষে ২৫ জওয়ান আহত হয়েছেন। আহতদের হেলিকপ্টারে করে রাইপুরে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে মাওবাদী অধ্যুষিত সুকমা জেলায় ভয়াবহ ইমপ্রোভাইসড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস (আইইডি) বিস্ফোরণের ফলে ওই হতাহতের ঘটনা ঘটে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রাজনাথ সিং ওই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে নিহত জওয়ানদের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা ও আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন।

কর্মকর্তা সূত্রে প্রকাশ, আজ সকালে সিআরপিএফ জওয়ানরা ল্যান্ডমাইনরোধক গাড়িতে করে মাওবাদীদের সন্ধানে তল্লাশি অভিযানে যাওয়ার সময় ওই বিস্ফোরণ ঘটে। সকাল ৮টা নাগাদ সুকমা জেলায় মাওবাদীদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষ হয়। এসময় কোবরা বাহিনীর সদস্যদের পদক্ষেপে মাওবাদীরা পালিয়ে যায়। এরপর দুপুর সাড়ে বারোটা নাগাদ কিস্তরাম ও পালোডার মধ্যবর্তী জায়গায় বিস্ফোরণের ফলে ৯ সিআরপিএফ সদস্য নিহত হন।

এর আগে গত ২ মার্চ ছত্তিসগড়ের বিজাপুর জেলার পূজারীকাঁকের এলাকায় সিআরপিএফের সঙ্গে সংঘর্ষে কমপক্ষে ১০ মাওবাদী নিহত হয়েছিলেন। আজকের হামলার ঘটনা তারই পাল্টা বলে মনে করা হচ্ছে।

এক বছর আগে এ ধরণের হামলা চালিয়েছিল মাওবাদীরা। ২০১৭ সালের ১১ মার্চ সুকমা জেলায় মাওবাদীদের ভয়াবহ হামলায় সেসময় ১১ সিআরপিএফ সদস্য নিহত হয়েছিলেন।

২০১৭ সালের ২৪ এপ্রিল সুকমাতেই মাওবাদী হামলায় ২৫ সিআরপিএফ জওয়ান নিহত হয়েছিলেন।

বন্দুক দিয়ে সমাধান হবে না: ছোটন দাস

মাওবাদী ও নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে বিভিন্ন সময়ে পাল্টাপাল্টি হামলায় হতাহত প্রসঙ্গে আজ (মঙ্গলবার) পশ্চিমবঙ্গের ‘বন্দি মুক্তি কমিটি’র সম্পাদক ছোটন দাস রেডিও তেহরানকে বলেন, ‘এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় সরকারের একটা রিপোর্ট আছে। দেবব্রত বন্দ্যোপাধ্যায় কমিটির রিপোর্ট। সেই রিপোর্টকে কেন্দ্রীয় সরকারকে অনুসরণ করা উচিত। এটা একটা আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক সমস্যা। বন্দুক দিয়ে, কারাগারে পাঠিয়ে ওই সমস্যার সমাধান হবে না। অন্যথায় এই রক্তপাত বন্ধ হবে না।’

ছোটন দাস বলেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকারে আজ যারা আছেন তাদের মাথায় এসব ঢুকবে না। নাগাল্যান্ডের ক্ষেত্রে সরকার তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসেছিল, সংঘর্ষ বিরতি থাকায় দীর্ঘকাল সেখানে শান্তি বজায় রয়েছে। গণতন্ত্রকে বলা হয় ‘ডায়ালগ ডেমোক্রেসি’। এজন্য আলোচনা চালিয়ে যেতে হবে।’

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য