ইউরোপ থেকে আমদানি করা গাড়ির ওপর কর আরোপের হুমকি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ইস্পাত ও অ্যালুমিনিয়াম আমদানির ওপর যুক্তরাষ্ট্রের শুল্ক আরোপের সিদ্ধান্তের পাল্টা হিসেবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) কোনো ব্যবস্থা নিলে হুমকি কার্যকর করা হবে বলে শনিবার এক টুইটে জানিয়েছেন তিনি, খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

এর মাধ্যমে ট্রাম্প বাণিজ্য অংশীদারদের ওপর চাপ অব্যাহত রাখলেন বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

ট্রাম্পের টুইটে ধারণা পাওয়া যাচ্ছে, তিনি যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য স্বার্থের বিষয়ে নতি স্বীকার করতে রাজি নন।

ট্রাম্পের এসব ঘোষণায় বাণিজ্য যুদ্ধ শুরুর সম্ভাবনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের বিদেশি বাণিজ্য অংশীদাররা।

টুইটে ট্রাম্প বলেছেন, “ইইউ যদি ‍যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানিগুকে সেখানে ব্যবসা করার ওপর ইতোমধ্যে আরোপিত বাধা ও বিপুল শুল্ক আরো বাড়াতে চায় তাহলে আমরা যুক্তরাষ্ট্রে অবাধে চলে আসা তাদের গাড়ির ওপর করারোপ করবো।

“তারা সেখানে আমাদের গাড়ি বিক্রিকে অসম্ভব করে রেখেছে। বড় ধরনের বাণিজ্য বৈষম্য!”

অনলাইনে পোস্ট করা এক ভিডিওতে শুক্রবার ফ্লোরিডায় তহবিল সংগ্রহের এক ‍অনুষ্ঠানে ট্রাম্পকে ইউরোপের সমালোচনা করতে দেখা গেছে। এখানে করা মন্তব্যে তিনি বলেছেন, ইউরোপের শুল্ক বৃদ্ধি করা উচিত হবে না।

তিনি আরো বলেছেন, “ইউরোপীয় ইউনিয়ন: নিষ্ঠুর! তারা আমাদের প্রতি নিষ্ঠুর ব্যবহার করে আসছে। যুক্তরাষ্ট্রকে বাণিজ্যে হারানোর জন্যই তারা একত্র হয়েছে।”

শনিবার হোয়াইট হাউসে ফেরার পর শুল্ক ও অন্যান্য বিষয়ে ট্রাম্পকে প্রশ্ন করা হলেও তিনি জবাব দেননি বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

শুক্রবার রাতে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে এক বক্তৃতায় প্রতিযোগিতা বিষয়ক ইউরোপীয় কমিশনার মার্গারিটা ভেস্তেয়া বলেছেন, “ইউরোপের শিল্পকে ও বিশ্ব বাণিজ্যের পদ্ধতিকে রক্ষা করতে ইইউ এই শুল্কের জবাব দিবে।”

ট্রাম্পের সিদ্ধান্তকে তিনি ‘একপাক্ষিক সংরক্ষণনীতিজনিত পদক্ষেপ’ বলে আখ্যায়িত করেছেন।

“এটি শুধু চাকরির বাজারকেই সঙ্কুচিত করবে না, যার ওপর দাঁড়িয়ে আমাদের বিশ্ব অর্থনীতি কাজ করছে সেই পুরো নীতিপদ্ধতিটিকেই এটি আঘাত করবে,” বলেছেন তিনি।

গত বছর জার্মানির অটোমোটিভ ট্রেড অ্যাসোসিয়েশন বলেছিল, “শুল্ক ও অন্যান্য বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র তার নিজের পায়েই গুলি করছে।”

বাণিজ্য নিয়ে আটলান্টিক মহাসাগরের দুইপাশের মধ্যে উত্তেজনার মধ্যেই ট্রাম্প নতুন হুমকিটি দিলেন।

বৃহস্পতিবার ট্রাম্প জানান, যুক্তরাষ্ট্র অভ্যন্তরীণ উৎপাদন রক্ষায় আমদানিকৃত স্টিলের ওপর ২৫ শতাংশ এবং এ্যালুমিনিয়ামের ওপর ১০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করবে।

যুক্তরাষ্ট্রের এই সিদ্ধান্তে গাড়ি ও ট্রাকের দাম বৃদ্ধি পাবে বলে জানিয়েছেন প্রধান গাড়ি নির্মাতারা।

এর পরদিন ইউরোপীয়ান কমিশনের প্রেসিডেন্ট জ্যা ক্লদ জাঙ্কার জার্মান টেলিভিশনকে বলেন, “আমরা হার্লি-ডেভিডসন (মোটরসাইকেল), বোরবোন ও ব্লু জিন্স-লিভাইস এর ওপর শুল্ক আরোপ করবো।”

স্টিল ও এ্যালুমিনিয়ামের ওপর কোনো শুল্ক আরোপ করা হলে তারাও পাল্টা ব্যবস্থা নিবে বলে জানায় কানাডা।

এরপর শুক্রবার ট্রাম্প এক টুইটে বলেন, “বাণিজ্য যুদ্ধ ভাল এবং এতে সহজে জেতা যায়।”

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য