বুধবার ভোরে (২৮ ফেব্রুয়ারি) নাবলুস শহরের পূর্বাঞ্চলে ইহুদি ও মুসলিমদের পবিত্র এলাকা জোসেফ’স টম্বে (জোসেফের সমাধি) প্রায় ১৫০০ ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকারী হামলা চালিয়েছে। ইসরায়েলি বাহিনীর সুরক্ষা নিয়ে হামলা চালায় তারা। পরে এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ফিলিস্তিনি তরুণ এবং ইসরায়েলি দখলদার বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

মুসলিম ও ইহুদি দুই পক্ষই আলাদা আলাদা করে নাবলুসের ওই সমাধি ক্ষেত্রটিকে নিজেদের পবিত্র স্থান বলে দাবি করে থাকে। মুসলিমদের কাছে সমাধিটি পুরনো এক মসজিদের অংশ, যেখানে হযরত ইউসূফ (আ:) কে কবর দেওয়া হয়েছে। আর ইহুদিদের দাবি, সেখানে তাদের এক রাব্বির সমাধি আছে।

মধ্যপ্রাচ্যের সংবাদ পর্যবেক্ষণকারী ব্রিটিশ ওয়েবসাইট মিডল ইস্ট মনিটর জানায়, ইসরায়েলের সেনাবাহিনীর সুরক্ষা নিয়ে বুধবার জোসেফ টম্বে হামলা চালায় অবৈধ ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকারীরা। সেখানে ইহুদিদের পবিত্র গ্রন্থ তালমুদ পাঠ করা হয়। এর পর পরই ফিলিস্তিনি তরুণদের সঙ্গে ইসরায়েলি বাহিনীর সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে।

কুদস প্রেসের এক প্রতিনিধিকে উদ্ধৃত করে মিডল ইস্ট মনিটর জানায়, দখলদার বাহিনী এলাকাটিতে অভিযান চালায় এবং আশেপাশের এলাকা বন্ধ করে দেয়। সমাধিতে হামলাকারী ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকারীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে ওই এলাকায় স্থানীয় চলাচলে বাধা দেওয়া হয়। কুদস প্রেসের প্রতিবেদনে বলা হয়, ইসরায়েলি বাসে করে শত শত বসতি স্থাপনকারীকে ওই এলাকায় নিয়ে আসা হয়। বিক্ষোভকারী ফিলিস্তিনিদের ছত্রভঙ্গ করতে তাজা গুলি, এবং রাবারের আবরণে ঢাকা স্টিল বুলেট ছোড়ে পুলিশ।

১৯৯৫ সালে জোসেফ’স টম্বে সংঘর্ষে বেশ ক’জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়। ১৯৯৬ সালে ওই এলাকায় ৯ ইসরায়েলি সেনাকে হত্যা করা হয়। ১৭ বছর পর গত ডিসেম্বরে আবারও ওই এলাকায় অভিযান চালিয়েছিল ইসরায়েলি বাহিনী।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য