আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাট থেকে: অদম্য মেধাবী প্রতিবন্ধী (বামন) আনোরুল ইসলাম (১৯)। উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হওয়ার স্বপ্ন দেখেন তিনি। আনোয়ারুল ইসলাম আগামি ২রা এপ্রিল (বিএম শাখা) থেকে এইচএসসি প্রথম বর্ষের পরীক্ষায় অংশ গ্রহনের মধ্যেদিয়ে স্বপ্ন জয়ের গল্পের দ্বিতীয় ধাপের দিন গণনা করছে। দেখতে ছোট মানুষ হলেও তার স্বপ্নটা বেশ বড়ই। তবে স্বপ্ন পুরণ নিয়ে খানিকটা সংশয় আনোয়ারুলের।

কৃষক পরিবারের সন্তান সে। চার ভাই বোনের অসচ্ছল সংসারে যেখানে কাজ করেই চলতে হয়। দিন দিন বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে তার শারীরিক প্রতিবন্ধকতাও সামনে আসতে শুরু করছে, সেই সাথে বাড়ছে বাড়তি চিন্তা। অনিশ্চিয়তা হাত ছানি দিতে লাগছে আনোয়ারুলের ভবিষ্যতকে। শারীরিক প্রতিবন্ধকতার কারণে ভারি কাজ করা সম্ভব হয় না তার।

তাঁর উচ্চতা তিন ফুট তিন ইঞ্চি।

আনোয়ারুল ইসলাম লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার কাকিনা উত্তরবাংলা ডিগ্রী কলেজে অধ্যয়ন করছে। পেছনেই তার বন্ধুরা। অদম্য আনোয়ারুলের স্বপ্নের সিড়ি বেয়ে তাঁদেরও এগিয়ে চলা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, লালমনিরহাট জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার তুষভাণ্ডার ইউনিয়নের দক্ষিণ ঘনশ্যাম গ্রামের ইউসুফ আলীর ছেলে আনোয়ারুল ইসলাম। তবুও থেমে যায়নি মেধাবী ছাত্র আনোয়ারুলের স্বপ্নযাত্রা। শতভাগ মনোবল লালন করে চলছেই সে।

ইউসুফ আলী ও আনজুমা খাতুন দম্পতির চার ছেলেমেয়ের মধ্যে আনোয়ারুল দ্বিতীয় ছেলে। অন্য ভাইবোনরা বেশি পড়ালেখা করতে না পারলেও আনোয়ারুল দেখতে ছোট মানুষ হলেও বড় হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে, বুক ভরা প্রত্যয় নিয়ে শারীরিক প্রতিবন্ধকতাকে জয় করতে হামাগুঁড়ি দিয়ে এগিয়ে চলেছে।

শারীরিক প্রতিবন্ধকতা থাকা সত্ত্বেও সে শিক্ষার আলোয় নিজেকে আলোকিত করার প্রাণপন চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আনোয়ারুল বলেন, পড়াশুনা করে আমি একজন সরকারি অফিসার হতে চাই। কষ্ট হলেও পড়া-লেখা চালিয়ে যাব।

উত্তরবাংলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ এএসএম মনোওয়ারুল ইসলাম বলেন, আর্থিক কষ্টের মাঝেও আনোয়ারুল ইসলাম পড়াশুনা চালিয়ে যাচ্ছে। আগামিতে ভালো ফলাফল করবে বলে আশা করছি। আনোয়ারুল প্রতিবন্ধী হিসেবে সকল প্রকার সুযোগ পাচ্ছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য