কাহারোল (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ সরকারের ভূমি মন্ত্রনালয়ের ভূমি সচিব মোঃ আব্দুল জলিল বলেছেন, গুচ্ছ গ্রামে বসবাসরত ভূমিহীনদেরকে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ গ্রহন করে নিজেরাই স্বাবলম্বী হয়ে উঠতে হবে এবং তাদের ছেলে মেয়েদেরকে সু-শিক্ষায় শিক্ষিত হিসেবে সমাজ, দেশ ও জাতীর কাছে মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

বর্তমান সরকার ক্ষমতা গ্রহনের পর থেকে গৃহ-হারা মানুষের কথা চিন্তা করে সরকারী খাঁস জমিতে গুচ্ছ গ্রাম নির্মাণ করে তাদেরকে পূনবাসন করার ব্যবস্থা গ্রহন করেছেন।

এর পাশাপশি তারা যেন নিজেরাই স্বালম্বী হয়ে সমাজ ও দেশের মানুষের কাছে মাথা উচু করে দাঁড়াতে পারে সেই জন্য গুচ্ছ গ্রাম গুলোতে পুকুর খনন করে মাছ চাষ, হাঁস,মুরগী পালন, প্রশিক্ষনের মাধ্যমে গবাদী পালন, বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপন, শাক সবজি চাষ আবাদ করতে পারে সেই জন্যও সরকার ব্যবস্থা গ্রহন করেছেন।

তিনি শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলা সুন্দরপুর ইউনিয়নে সুন্দরপুর গুচ্ছ গ্রাম-১ (সম্প্রসারন) ও সুন্দরপুর-২ গুচ্ছ গ্রাম ২টিতে বসবাসরত উপকার ভোগীদের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড সম্পর্কিত মতবিনিময় সভা ও পরিদর্শন কালে উপরোক্ত কথা গুলো বলেছেন।

উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাসিম আহমেদে-এর উপস্থাপনায় গুচ্ছ গ্রামে উপকার ভোগীদের সাথে মতবিনিময় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জাতীয় প্রকল্প পরিচালক গুচ্ছ গ্রাম-২ পর্যায় (সিভিআরপি) প্রকল্প ও যুগ্ন সচিব মোঃ মাহবুবু-উল-আলম, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ মামুনুর রশীদ চৌধুরী, রংপুর আঞ্চলিক প্রকল্প পরিচালক ও যুগ্ন সচিব মোঃ আবু হোরায়রা, জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার ও যুগ্ন সচিব মোঃ জাকির হোসেন, দিনাজপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ড. মোঃ শহিদ উদ্দীন চৌধুরী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাসিম আহমেদ, সুন্দর পুর ইউপি চেয়ারম্যন শরীফ উদ্দীন মাষ্টার।

জানাযায়,উপজেলার সুন্দরপুর ইউনিয়নের সুন্দরপুর-১ ও ২ গুচ্ছ গ্রাম প্রকল্পরের আওতায় ২০০টি ঘর এর মধ্যে ১৮০টি ঘর সরকারি প্রাক্কলন অনুযায়ী নির্মাণ করেন সাবেক উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বর্তমানে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আসলাম মোল্লা ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য