আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ীর উপজেলা ছাত্রলীগের অশান্ত রাজনৈতিক অঙ্গন এখন শান্ত। মাত্র একদিনের ব্যবধানে ছাত্রলীগ জেলা কমিটি কর্তৃক পলাশবাড়ী উপজেলা ছাত্রলীগের দুটি কমিটি অনুমোদন দেয়ায় অশান্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল।

ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সময়োপযোগী হস্তক্ষেপে অবশেষে উভয় কমিটির সকল কার্যক্রম স্থগিত করায় সৃষ্ট উদ্ভট পরিস্থিতি স্বাভাবিকে ফিরে আসে। গঠনতন্ত্র বিরোধি নবগঠিত অনুমোদিত কমিটি বিলুপ্ত ঘোষনা করা হয়েছে। সেই সাথে জেলা কমিটির দায়িত্বশীল তিন নেতার বিরুদ্ধে কেন সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে না মর্মে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে সন্তোষজনক জবাব চেয়ে কারন দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়েছে।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, প্রায় দেড় যুগ পর গত ২০১৭ সালের ২৯ জুলাই ছাত্রলীগ পলাশবাড়ী শাখার জাঁকজমকপূর্ণ কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু দ্বিধাবিভক্ত ছাত্রলীগ নেতাকর্মিদের নানামুখি অসন্তোষের কারনে শেষ পর্যন্ত কোন কমিটি ঘোষনা ছাড়াই সম্মেলন সম্পন্ন করা হয়। এদিকে কমিটি অনুমোদনে একাধিক গ্রুপ সৃষ্টি হওয়ায় এনিয়ে নানা টালবাহানায় দীর্ঘ ৭ মাস পেরিয়ে যায়।

সর্বশেষ প্রথমত গত ২০ ফেব্রুয়ারি জেলা ছাত্রলীগ আহবায়ক আব্দুল লতিফ আকন্দ ও যুগ্ম আহবায়ক রাহাদ মাহমুদ রনি যৌথ স্বাক্ষরিত এক পত্রে মামুন-অর-রশিদ সুমনকে সভাপতি এবং খন্দকার মো. ফরহাদ হোসেনের নাম উল্লেখ করে এক বছর মেয়াদে একটি কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়।

অপরদিকে, মাত্র একদিন পর ২২ ফেব্রুয়ারি জেলা কমিটির যুগ্ম আহবায়ক আলহাজ্ব শাহারিয়া আহম্মেদ শাকিল একক স্বাক্ষরে পৃথক পত্রে মোস্তাকিম সরকার বাবলাকে সভাপতি, অলোক কুমার রায়, সাকিউল ইসলাম বাপ্পি ও আবেদুর রহমান সরজকে সহ-সভাপতি, নজিবুর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক, আরিফিন হোসেন সাগর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং যথাক্রমে মাহফুজ রহমান মাফু ও রাহেনুর ইসলাম রানাকে সাংগঠনিক সম্পাদক উল্লেখ করে অপর একটি কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়।

দ্বিধাবিভক্ত প্রথমতঃ অনুমোদিত কমিটির নেতৃবৃন্দ দলীয় কার্যালয়ে ফুলেল মালায় সিক্ত নেতৃবৃন্দ সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় এবং প্রত্যাশিত কমিটি প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত ছাত্রলীগ অপরাংশের নেতৃবৃন্দ পৃথক সভার আয়োজনসহ সদরে নীরব শো-ডাউন প্রদর্শনে তাদের মধ্যে চরম অসন্তোষের সৃষ্টি হয়। সদরে সম্ভাব্য কোন ঘটনা এড়াতে পুলিশ টহল আরো জোরদার করে।

অপরদিকে, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ সভাপতি মো. সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারন সম্পাদক এস.এম জাকির হোসাইন যৌথ স্বাক্ষরিত ২৩ ফেব্রুয়ারি ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের জরুরি সিদ্ধান্তে অনুমোদিত উভয় কমিটি বিলুপ্ত ঘোষনা করা হয়।

সেই সাথে ছাত্রলীগ গাইবান্ধা জেলা শাখার ওই তিন নেতার নিকট আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে জবাব চেয়ে কারন দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। সন্তোষজনক জবাব প্রদানে ব্যর্থ হলে তাদের বিরুদ্ধে জরুরি সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে দলীয় দলীয় প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো করা হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য