রেকর্ড ভাঙা আর গড়া কাকে বলে দেখিয়ে দিচ্ছে মার্ভেল স্টুডিওর ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’। মুক্তির প্রথম তিন দিনে ২০ কোটি ১০ লাখ ডলারের ব্যবসা করেছে ছবিটি। আর এক সপ্তাহে এর ঘরে এসেছে ২৩ কোটি ৫০ লাখ ডলার!

যা ধারণা করা হয়েছিল তার চেয়েও দ্বিগুণ ব্যবসা করেছে ছবিটি। মুক্তির প্রথম সপ্তাহে হলিউডে সর্বকালের সেরা ছবির তালিকায় পাঁচ নম্বরে জায়গা করে নিয়েছে ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’। কৃষ্ণাঙ্গ তারকাই বেশি, প্রথম এমন কোনও ছবি ব্লকবাস্টার খেতাব পেয়েছে।

সারাবিশ্বে এখন চলছে ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’ বন্দনা। যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামাও ছবিটির ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘ছবিটি আমার ভালো লেগেছে।’ তার সঙ্গে যোগ দিয়েছেন ‘ওয়ান্ডার ওম্যান’-এর নির্মাতা প্যাটি জেনকিন্সও।

মার্ভেলের ‘দ্য অ্যাভেঞ্জার্স’ ছাড়া ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’ই কেবল এ’প্লাস সিনেমাস্কোর পেয়েছে। ছবিটির গানের অ্যালবাম এখন আছে বিলবোর্ড টু হান্ড্রেড চার্টের শীর্ষে।

২০ কোটি ডলার বাজেটে ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’ পরিচালনা করেছেন রায়ান কুগলার। এতে নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন চ্যাডউইক বোজম্যান। তার চরিত্রের নাম কিং টি’শালা। প্রযুক্তিগতভাবে উন্নত ওয়াকান্ডা রাজ্যের রাজা সে। বাবার মৃত্যুর পর নিজেদের রাজ্যকে এগিয়ে নেওয়ার মনস্থির করে টি’শালা। কিন্তু তার সামনে বাধা হয়ে দাঁড়ায় এরিক কিলমঙ্গার। টি’শালার বাবার ভুলের কারণে শৈশবে নিজের বাবাকে হারায় সে।

এদিকে বড় পর্দায় ছবিটি শিশুদের দেখাতে টিকিট কেনার জন্য ‘ব্ল্যাক প্যান্থার চ্যালেঞ্জ’ হ্যাশট্যাগসহ চলছে অনলাইন কর্মসূচি। গো ফান্ড মি ওয়েবসাইট জানিয়েছে, ইতোমধ্যে ৪ লাখ ডলার সংগ্রহ হয়েছে।

চলুন দেখি ছবিটি কোন কোন রেকর্ড ভেঙেছে-
* ফেব্রুয়ারিতে মুক্তি পাওয়া কোনও ছবির প্রথম তিন দিনে সবচেয়ে বেশি (১৯ কোটি ২০ লাখ ডলার) আয়ের রেকর্ড গড়েছে ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’। আগের রেকর্ডটি ছিল ২০১৬ সালের ছবি ‘ডেডপুল’-এর দখলে (১৩ কোটি ২০ লাখ ডলার)। ওই বছর প্রেসিডেন্টস ডে’র সময় প্রেক্ষাগৃহে আসা ‘ডেডপুল’-এর ১৫ কোটি ২০ লাখ ডলারের ব্যবসার রেকর্ডকেও টপকে গেছে ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’। সর্বকালের হিসাবে ফেব্রুয়ারিতে মুক্তি পাওয়া সবচেয়ে ব্যবসাসফল ছবির তালিকায় এটি আছে পাঁচ নম্বরে।

* মুক্তির প্রথম সপ্তাহে ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’-এর ঘরে এসেছে ২১ কোটি ৮০ লাখ ডলার। সিক্যুয়েল নয় এমন ছবির ক্ষেত্রে এটি রেকর্ড। আগের রেকর্ডটি গড়েছিল ২০১২ সালের ছবি ‘দ্য হাঙ্গার গেমস’ (১৫ কোটি ২০ লাখ ডলার)। ‘দ্য অ্যাভেঞ্জার্স’ অবশ্য বেশি আয় করেছিল, তবে এটাকে ‘আয়রন ম্যান’, ‘ক্যাপ্টেন আমেরিকা: দ্য ফার্স্ট অ্যাভেঞ্জার’ ও ‘থর’-এর সিক্যুয়েল ধরা হয়।

* একজন মাত্র সুপারহিরো আছেন এমন ছবির সবচেয়ে বেশি ব্যবসার রেকর্ডও গড়েছে ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’। এ তালিকায় এর আগে শীর্ষে ছিল ‘আয়রন ম্যান থ্রি’। ২০১৩ সালে এটি আয় করে ১৭ কোটি ৪০ লাখ ডলার। ২০১৬ সালে ‘ক্যাপ্টেন আমেরিকা: সিভিল ওয়ার’ প্রথম সপ্তাহে আয় করে ১৭ কোটি ৯০ লাখ ডলার, তবে এতে মার্ভেলের বেশ কয়েকজন সুপারহিরোরা ছিল।

* প্রেসিডেন্টস ডে উপলক্ষে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’ প্রথম সপ্তাহে আয় করেছে ২৩ কোটি ৫০ লাখ ডলার। এর আগে ২০০৯ সালে স্বাধীনতা দিবসকে সামনে রেখে মুক্তি পাওয়া ‘ট্রান্সফরমার্স: রিভেঞ্জ অব দ্য ফলেন’ আয় করেছিল ১৮ কোটি ডলার।

* মুক্তির মাত্র পাঁচ দিনে কৃষ্ণাঙ্গ কোনও পরিচালকের বানানো ছবি হিসেবে সবচেয়ে বেশি আয়ের ক্লাবে ঢুকেছে ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’। কৃষ্ণাঙ্গ কোনও পরিচালকের ছবির ব্যবসায়ও নতুন রেকর্ডের জন্ম দিয়েছে ছবিটি। এর আগে এফ গ্যারি গ্রে পরিচালিত ‘দ্য ফেট অব দ্য ফিউরিয়াস’ প্রথম সপ্তাহে আয় করেছিল ৯ কোটি ৮৮ লাখ ডলার। শ্বেতাঙ্গ নন এমন পরিচালকদের ছবির ব্যবসায়ও সবাইকে ছাড়িয়ে গেছে ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’। আগের রেকর্ডটি (১৪ কোটি ৭০ লাখ ডলার) ছিল জেমস ওয়ানের ‘ফিউরিয়াস সেভেন’ (২০১৬) ছবির দখলে।

* মুক্তির চতুর্থ দিনে (সোমবার) সবচেয়ে বেশি আয়ের (৪ কোটি ২০ লাখ ডলার) রেকর্ডও গড়েছে এই ছবি। আগের রেকর্ড ৪ কোটি ১০ লাখ ডলার আয় করেছিল ‘স্টার ওয়ারস: দ্য ফোর্স অ্যাওয়েকেন্স’।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য