মোঃ আবেদ আলী, বীরগঞ্জ থেকেঃ বীরগঞ্জে ২০ ফেব্রুয়ারী সকালে পুলিশ এক চাষীর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরন করা হয়েছে।

বীরগঞ্জ থানা সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার সাতোর ইউনিয়নের ডাকেশ্বড়ী গ্রামের মৃত গবিন চন্দ্র রায়ের ছেলে রমেশ চন্দ্র রায় শুনু ( ৫৫) গত সোমবার বিকেলে বাড়ী থেকে নিখোঁজ হয়।

২০ ফেব্রুয়ারী সকালে পথচারীরা ঢাকা-পঞ্চগড় মহাসড়কের কবিরাজহাট এলাকার একটি স’মিলে কাঠের উপর মৃত অবস্থায় দেখতে পেয়ে পথচারীরা পরিবারকে খবর দেয়।

এরপর ভোগনগর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ বদিউজ্জামান পান্নার মাধ্যমে পুলিশ সংবাদ পেয়ে এসআই প্রভাত চন্দ্র সরকার ও মোঃ আল আমিন ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরতহাল লিপিবদ্ধ করে মৃত্যুর প্রকৃত রহস্য উদঘাটনের জন্য লাশ উদ্ধার করে দিনাজপুর এমএ রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করেছে।

প্রতিবেশীরা জানান, সম্প্রতি রমেশ চন্দ্র রায় শুনুর একটি অষ্টিলিয়া গাই গরু অজ্ঞাত চেরেরা চুরি করে। মুক্তিপনের মাধ্যমে চুরি যাওয়া গাইটি পাওয়ার আশায় চিহিৃত চোরদের পিছে ঘুরছিল। ঘটনার আগের দিন বিকেলে বাড়ী থেকে বেড়িয়ে গরু খুজতে যায় রাতে সে বাড়ীতে ফিরে আসেনি।

অনেক খোজাখুজি করে তাকে পাওয়া যায়নি। এলাকাবাসীর ধারনা মুক্তিপনের টাকা নিয়ে তাকে হত্যা করে মুখে বিষ ঢেলে দিয়ে স’মিলে শোয়ায়ে রেখে খুনিরা পালিয়ে গেছে।

ওসি তদন্ত মোঃ মছলেউল গনি সংবাদে সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মৃত ব্যাক্তি সনুর অনেক টাকা ঋণ ২০ ফ্রেরুয়ারী সালিস বৈঠক হওয়ার কথা ছিল।

সে কারনে আত্মহত্যা করতে পারে। তার মুখে বিষের গন্ধ পাওয়া গেছে। থানায় একটি অস্বাভাবিক মৃত্যু মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। ভিষারা রির্পোট হাতে পেলে জানা যাবে হত্যা না আত্মহত্যা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য