ফ্লোরিডার স্কুলে নির্বিচারি বন্দুক হামলা থেকে বেঁচে যাওয়া শিক্ষার্থীরা যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র আইন সংশোধনের দাবিতে বিক্ষোভ করার ঘোষণা দিয়েছে। আগামী ২৪ মার্চ ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত হবে ‘মার্চ ফর আওয়ার লাইভস’ নামের এ বিক্ষোভ। রবিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) শিক্ষার্থীরা এ ঘোষণা দেয় বলে জানিয়েছে ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি।

১৪ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের পার্কল্যান্ডে মারজোরি স্টোনম্যান ডগলাস হাই স্কুলে ঢুকে পড়া বন্দুকধারীর হামলায় অন্তত ১৭ জন নিহত হয়। এক ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে গোলাগুলির পর হামলাকারী হিসেবে আটক করা হয় ওই স্কুলের সাবেক ছাত্র নিকোলাস ক্রুজকে। শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে স্টোনম্যান ডগলাস হাই স্কুল থেকে ১৯ বছরের ওই তরুণকে এক সময় বহিষ্কার করা হয়েছিল। এরইমধ্যে সে ‘স্বীকারোক্তিমুরক জবানবন্দি দিয়েছে বলে দাবি করেছে পুলিশ।

যুক্তরাষ্ট্রে বছরে ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষ গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যুবরণ করে। এ নিয়ে প্রায় সময় বিদ্যমান অস্ত্র আইন এবং অস্ত্র বিক্রেতা ও রাজনীতিকদের মধ্যকার সম্পর্ক নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। তবে গত বছরের অক্টোবরে লাস ভেগাসে বন্দুকধারীর হামলায় ৫৮ জন নিহত হওয়ার পরও অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ প্রশ্নে কোনও সমঝোতায পৌঁছাতে পারেননি রাজনীতিবিদরা।

১৪ ফেব্রুয়ারি ফ্লোরিডার স্কুলে হামলার পর অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের দাবিটি আবারও জোরালো হয়ে উঠেছে। রবিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) ডগলাস স্কুলের এক দল শিক্ষার্থী এবিসি নিউজের ‘দিস উইক’ অনুষ্ঠানে জানায়, ২৪ মার্চ দেশজুড়ে আয়োজিত অন্যান্য র‍্যালির পাশাপাশি ‘মার্চ ফর আওয়ার লাইভস’ বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হবে। যুক্তরাষ্ট্রের আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত বিতর্কের অচলাবস্থা দূর করার ক্ষেত্রে ফ্লোরিডার স্কুলে বন্দুক হামলার ঘটনাকে নতুন মোড়ে পরিণত করার অঙ্গীকার করেছে তারা।

বিক্ষোভের ঘোষণা প্রদানকারী শিক্ষার্থীদের একজন এমা গনজালেজ। ফ্লোরিডাই যেন ‘শেষ বন্দুক হামলার ঘটনা হয়’ তা নিশ্চিত করতে রবিবার শপথ নেন তিনি। অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত আলোচনায় অংশ নিতে রাজনীতিবিদদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

রাজনীতিবিদ এবং অস্ত্র বহনের অধিকারের পক্ষে সরব থাকা সংগঠন ন্যাশনাল রাইফেল অ্যাসোসিয়েশনের (এনআরএ) মধ্যে সংযোগ থাকার প্রসঙ্গ টেনে শিক্ষার্থী ক্যামেরন কাস্কি বলেন, ‘এনআরএ থেকে অর্থ গ্রহণ করছে এমন যেকোনও রাজনীতিবিদ এ ধরনের ঘটনার জন্য দায়ী। এটি রিপাবলিকানদের জড়িত থাকার বিষয় নয়। ডেমোক্র্যাটদের জড়িত থাকার বিষয়ও নয়।’

ন্যাশনাল রাইফেল অ্যাসোসিয়েশন (এনআরএ) বর্তমানে কংগ্রেস ও হোয়াইট হাউসের নিয়ন্ত্রণে থাকা রিপাবলিকানদের মিত্র বলে পরিচিত। সংগঠনটি যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনীর সুরক্ষার পক্ষে কাজ করে। এ সংশোধনীর আওতায় ‘অস্ত্র রাখা ও বহনের’ অধিকার নিশ্চিত করার কথা বলা আছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য