ইসরায়েল-গাজা সীমান্তের কাছে বিস্ফোরণে চার ইসরায়েলি সৈন্য আহত হয়েছেন, এদের মধ্যে দুজনের আঘাত গুরুতর।

ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর বরাতে বিবিসি জানিয়েছে, শনিবার বিকেলে গাজা সীমান্তের বেড়ার কাছে একটি ফিলিস্তিনি পতাকা উড়তে দেখে সেদিকে এগিয়ে যায় ইসরায়েলি সৈন্যরা, কাছাকাছি যাওয়ার পরই বিস্ফোরণ ঘটে তারা আহত হন।

বিকেল ৪টার দিকে গাজার খান ইউনিস শহরের পূর্ব দিকে এ ঘটনা ঘটে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় গাজা ভূখন্ড নিয়ন্ত্রণকারী ফিলিস্তিনি রাজনৈতিক গোষ্ঠী হামাসের অবস্থানগুলো লক্ষ্য করে বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল।

তবে এতে কেউ হতাহত হয়েছে বলে কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

এই ঘটনাটিকে ২০১৪ সালে হামাসের যোদ্ধাদের সঙ্গে ইসরায়েলের যুদ্ধের পর থেকে ওই সীমান্তে ঘটা সবচেয়ে গুরুতর ঘটনা বলে বর্ণনা করেছে ইসরায়েলি গণমাধ্যম।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কোনো পক্ষ বিস্ফোরণটির দায় স্বীকার করেনি।

ইসরায়েলি সেনাবাহিনী দাবি করেছে, শুক্রবার ওই এলাকায় একটি বিক্ষোভ চলার সময় বিস্ফোরক ডিভাইসটি পুতে একটি পতাকার সঙ্গে সংযুক্ত করে রাখা হয়। সৈন্যরা ইসরায়েলের অংশ থেকে ওই পতাকার দিকে এগিয়ে যাওয়ার পর বিস্ফোরণ ঘটে।

মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে যোগ দেওয়া ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, “গাজা সীমান্তের ওই বিস্ফোরণ অত্যন্ত গুরুতর ঘটনা। আমরা এর যথাযথ জবাব দিবো।”

ইসরায়েলি সেনাবাহিনী জানিয়েছে, তাদের যুদ্ধবিমানগুলো হামাসের ছয়টি লক্ষ্যে আঘাত হেনেছে, এরমধ্যে খান ইউনিস এবং দিয়ের আল বালাহর কাছে কয়েকটি কম্পাউন্ডের পাশাপাশি জেইতুনের কাছে ‘জঙ্গিদের’ বানানো ইসরায়েলমুখি একটি টানেলও রয়েছে।

ফিলিস্তিনি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, হামাসের তিনটি প্রশিক্ষণ শিবির ও ছোট একটি গোষ্ঠীর নিয়ন্ত্রিত আরেকটি প্রশিক্ষণ শিবির আক্রান্ত হয়েছে, তবে কেউ আঘাত পায়নি।

ইসরায়েলি গণমাধ্যম জানিয়েছে, শনিবার সন্ধ্যায় গাজা থেকে ছোড়া একটি রকেট দেশটির দক্ষিণাঞ্চলের একটি বাড়ির কাছে আঘাত হেনেছে, তবে এতে কেউ হতাহত হয়নি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য