ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ডক্টরস পয়েন্ট ও চৌধুরী ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মেযিকেল যন্ত্রপাতি চুরির করার ঘটনায় তিন জনের নাম উল্লেখ করে ৫ জনের নামে মামলা দায়ের করেছেন। ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক নুর আলম চৌধুরী জয়। গতকাল শুক্রবার ফুলবাড়ী থানায় এই মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার আসামীরা হলেন রাজারামপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রহিম এর ছেলে রফিকুল ইসলাম (৬০) রফিকুল ইসলামের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম (৪৫) ও রফিকুল ইসলামের ছেলে আবিদ ইসলাম রানা (৩০)।

মামলা সুত্রে জানা গেছে গত ৯ ফেব্রæয়ারী ফুলবাড়ী পৌর শহরের যমুনা ব্রীজের সংলগ্ন ডক্টর পয়েন্ট ও চৌধুরী ডায়াগনস্টিক সেন্টারে, হঠাৎ জোরপুর্বক প্রবেশ করে, রাজারামপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রহিম এর ছেলে রফিকুল ইসলাম (৬০), রফিকুল ইসলামের ছেলে আবিদ হোসেন রানা (৩০) ও রফিকুল ইসলামের স্ত্রী মনোয়ারা বেগমসহ অজ্ঞাতনামা ১৫ থেকে ২০জন যুবক।

তারা চৌধুরী ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বের করে দিয়ে, ডায়াগনস্টিক সেন্টারটি দখল করে নেয়। এর পর ডায়াগনস্টিক সেন্টারটির মালিক নুর আলম চৌধুরী জয় পুলিশ প্রসাশনের সহযোগীতায় গত ১৪ ফেব্রæয়ারী বুধবার বেলা ২ টায় ডায়াগনস্টিক সেন্টারটি উদ্ধার করে।

ডায়াগনস্টিক সেন্টারটি উদ্ধার হওয়ার পর দেখেন জোর পুর্বক দখলকারীরা, ডায়াগনস্টিক সেন্টারের প্রয়োজনীয় যন্ত্র পাতি পায় ফিজিও থেরাপির আকুঁপাঞ্চা মেশিন, আলট্রা¯েœাগ্রাম মেশিন, এনাটি গ্রাম মেশিন যার বাজার মূল্য ১৫ লাখ টাকাসহ ডায়াগনস্টিক সেন্টারে থাকা নগদ ৮০ হাজার টাকা চুরি করে নিয়ে গেছে জবর দখলকারীরা।

এই ঘটনায় ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক নুর আলম চৌধুরী জয় বাদি হয়ে গতকাল শুক্রবার ফুলবাড়ী থানায়, জোর দখলকারী রফিকুল ইসলাম, রফিকুল ইসলামের ছেলে আবিদ আসলাম রানা ও রফিকুল ইসলামের স্ত্রী মনোয়ারা বেগমের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত নামা আরো ২জনকে আসামী করে একটি চুরি মামলা দায়ের করেছেন।

নুর আলম চৌধুরী জয় বলেন গত ২০১৬ সালের আগষ্ট মাসে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ভবনটি পুর্বের মালিক রফিকুল ইসলামের নিকট খরিদ করে ডায়াগনস্টি সেন্টার চালু করেছেন। এর পরেও রফিকুল ইসলাম বারবার ভবনটি আমাকে ছেড়ে দিতে বলে।

এরই মাঝে গত ৯ ফেব্রæয়ারী একদল সন্ত্রাসী যুবকে নিয়ে এসে জোর পুর্বক ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জিম্ম করে দখল করে। এর পর আইনী প্রক্রিয়ায় গত ১৪ ফেব্রæয়ারী তিনি থানা পুলিশের মাধ্যমে ডায়াগনস্টিক সেন্টারটি উদ্ধার করেন। এরই মাঝে তারা ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মুল্যবান যন্ত্রপাতি চুরি করে নিয়ে যায়।

ফুলবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ নাসিম হাবিব বলেন ডায়াগনস্টিক সেন্টারটির জায়গার মালিকানা নিয়ে উভায় পক্ষের মধ্যে বিরোধ ছিল, সেই কারনে জায়গার পুর্বের মালিক রফিকুল ইসলাম জোর পুর্বক ভবনটি দখল করে। এরপর উভায় পক্ষের জাগজপত্র যাছাই করে ধেখা যায়। এই জায়টি রফিকুল ইসলাম, বর্তমান মালিক ডাঃ নুর আলম চৌধুরীর নিকট বিক্রি করেছে।

সেই মোতাবেক বর্তমান মালিক জায়গার লিজ নবায়ন করাসহ হালসন পর্যন্ত তার নামে খাজনা দেয়া আছে, এই কারনে ডায়াগনস্টিক সেন্টারটি বর্তমান মালিক ডাঃ নুর আলম এর নিকট বুজিয়ে দেয়া হল। এরই মধ্যে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মুল্যবান যন্ত্রপাতি চুরি হয়ে যাওয়ার কারনে, বর্তমান মালিক একটি মামলা দায়ের করেছে, পুলিশ বিষযটি নিয়ে তদন্ত করছে।

এদিকে রফিকুল ইসলাম বলেন ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ভবনটি, বর্তমান মালিক নুর আলম চৌধুরীর নিকট তিনি ভাড়া দিয়েছিলে, কিন্তু নুর আলম চৌধুরী ভাড়া নেয়া ভবনের নিজের নামে কাগজ তৈরী করে নিয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য