যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার হাই স্কুলে গুলি চালিয়ে ১৭ জনকে হত্যার ঘটনায় আটক সন্দেহভাজনের স্বীকারোক্তি পাওয়ার কথা জানিয়েছে মার্কিন পুলিশ।

১৯ বছর বয়সী নিকোলাস ক্রুজ বুধবার স্কুল ছুটির কিছু সময় আগে মার্জরি স্টোনম্যান ডগলাস হাই স্কুলে ঢুকে এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ১৪ শিক্ষার্থী ও আরও তিনজনকে হত্যা করে।

ঘটনার কিছু সময় পরই ক্রুজ আটক হন; বৃহস্পতিবার তাকে আদালতে হাজির করা হলে সেখানেই পুলিশ তার স্বীকারোক্তির কথা জানায় বলে খবর বিবিসির।

ক্রুজের বিরুদ্ধে পরিকল্পিত হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে।

পার্কল্যান্ডের মার্জরি স্টোনম্যান ডগলাস হাই স্কুলে সংঘটিত এ হত্যাকাণ্ডকে ২০১২-র পর যুক্তরাষ্ট্রের স্কুলগুলোতে হওয়া সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী বলা হচ্ছে।

“নিজেকেই বন্দুকধারী হিসেবে পরিচয় দিয়েছে ক্রুজ, যে একটি এ আর ফিফটিন বন্দুক নিয়ে স্কুল ক্যাম্পাসে ঢুকে হলওয়েতে এবং মাঠে যাকে পেয়েছে তার দিকেই গুলি ছুড়েছে,” আদালতের নথিতে এমনটাই লেখা বলে জানিয়েছে বিবিসি।

বন্দুক ছাড়াও ক্রুজ ব্যাকপ্যাক ও কালো ডাফেল ব্যাগে অতিরিক্ত গুলি নিয়ে গিয়েছিল। গুলির পর পালিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ছুটে বেরোনো শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ক্রুজ স্কুল ভবন ছাড়ে বলেও ওই নথিতে বলা হয়েছে। কাছাকাছি ওয়ালমার্ট ও ম্যাকডোনাল্ডসের দোকানে ঢুকলেও কিছুক্ষণের মধ্যেই ‍পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

এফবিআই জানায়, গত বছর একটি ইউটিউব মন্তব্যের সূত্র ধরে বেন বেনিংটন নামে এক ব্যবহারকারী এফবিআইকে ১৯ বছর বয়সী ক্রুজ সম্পর্কে সতর্ক করেছিল।

স্কুলের বহিষ্কৃত ছাত্র ক্রুজের ব্যাপারে শিক্ষকদেরও ইমেইল পাঠিয়ে সতর্ক করেছিল স্কুল কর্তৃপক্ষ।

বৃহস্পতিবার স্কুলে গুলির ঘটনায় নিহতদের পরিচয়ও প্রকাশ করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে স্কুলের সহকারী ফুটবল কোচ অ্যারন ফিস, অ্যাথলেটিক পরিচালক ক্রিস হিক্সন ও শিক্ষক স্কট বিগেলও আছেন।

নিহত ১৪ শিক্ষার্থীর বয়স ১৪ থেকে ১৮-র মধ্যে।

বৃহস্পতিবার মোমবাতি জ্বালিয়ে নিহতদের স্মরণ করেছে হাজারো ফ্লোরিডাবাসী। যুক্তরাষ্ট্রের ভেতর অস্ত্র আইন আরও কঠোর করারও দাবি জানিয়েছে তারা।

ঘটনার পর থেকে ডেমোক্রেট ও রিপাবলিকান সাংসদদের মধ্যে এ নিয়ে তীব্র বাদানুবাদ চলছে।

অস্ত্র বিক্রি ও পরিবহনে এখনই কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ না করা হলে গুলি ও হত্যার ঘটনা বাড়তেই থাকবে বলে ভাষ্য বিরোধীদের। রিপাবলিকানদের পাল্টা অভিযোগ, ফ্লোরিডার হত্যাকাণ্ডকে রাজনৈতিকভাবে কাজে লাগাতে চাইছে ডেমোক্রেট শিবির।

অস্ত্র আইন কঠোরের সময় এখনও আসেনি বলেও মন্তব্য তাদের।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য