যুক্তরাষ্ট্রের জনগণ এবং কংগ্রেস সদস্যদের উদ্দেশ্য করে একটি খোলা চিঠি লিখেছে আফগান তালেবান। বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) প্রকাশিত বিরল ওই চিঠিতে সংকট সমাধানে শান্তি আলোচনায় অংশ নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করা হয়েছে। আলোচনায় বসার জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসনের উপর চাপ প্রয়োগের জন্য ‘মার্কিন জনগণ’ ও ‘শান্তিপ্রিয় কংগ্রেসম্যানদের’ প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

৯/১১ হামলার পর ২০০১ সালে আফগানিস্তানে তালেবান সরকারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা। আল কায়েদাকে সমর্থন ও আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে সন্ত্রাসবাদ বিরোধী ওই যুদ্ধে তালেবানরা ক্ষমতা থেকে উৎখাত হলে মার্কিন সমর্থনে সেখানে নতুন সরকার গঠিত হয়। কয়েক দফা সাধারণ নির্বাচনে সেই ক্ষমতার পরিবর্তন হলেও ১৭ বছরেও শেষ হয়নি সন্ত্রাসবাদ বিরোধী যুদ্ধ। পরে বেশ কয়েক দফা শান্তি আলোচনার উদ্যোগ ভেস্তে যায়।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান জানায়, ১৭ বছর ধরে চলা এ যুদ্ধে সমাপ্তির জন্য আলোচনায় আগ্রহ প্রকাশ করে বুধবার যুক্তরাষ্ট্রকে খোলা চিঠি দেয় তালেবান। সংগঠনটির মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ প্রকাশিত ২৮০০ শব্দের ওই চিঠিতে এ যুদ্ধকে দুই পক্ষের জন্যই ‘অজেয়’ বলে উল্লেখ করা হয়। বলা হয়, যদি ১০০ বছরও এ যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়া হয় তবে তার ফলাফল একই থাকবে। চিঠিতে যুক্তরাষ্ট্রকে আলোচনায় বসার আহ্বান জানিয়ে বলা হয়, ‘শান্তিপূর্ণ আলোচনার মধ্য দিয়ে আফগান ইস্যুর সমাধান চাই আমরা।’

শান্তিপূর্ণ সমাধান চাওয়ার এ গঠনমূলক ভূমিকাকে দুর্বলতা না ভাবার জন্যও আহ্বান জানিয়েছে তালেবান। চিঠিতে আরও দাবি করা হয়, অন্য কোনও দেশের ক্ষতি করার ইচ্ছে তালেবানের নেই এবং কোনও দেশের বিরুদ্ধে আফগান ভূখণ্ডকে ব্যবহার করার সুযোগও দেওয়া হবে না।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, চিঠিতে তালেবান ২৭ জানুয়ারি কাবুলের হোটেল হামলায় ৩০ জন নিহত হওয়ার ঘটনা নিয়ে কিছু বলেনি। এক সপ্তাহ পর একটি জনাকর্ণি রাস্তায় বোমা হামলায় শতাধিক মানুষ নিহত হওয়ার ব্যাপারেও কিছু উল্লেখ করেনি তারা। তবে দুটি হামলারই দায় স্বীকার করেছিল তালেবান। এ বিবৃতি নিয়ে আফগান সরকারের কাছ থেকে প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি বলেও উল্লেখ করেছে রয়টার্স।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য