নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ হতে তারাগঞ্জ-সৈয়দপুর সড়কের চালাড়কাটা নদীর উপর নির্মিত বাহাগিলীর ঘাট বেইলী ব্রীজের পাটাতন ভেঙ্গে পড়ায় ভারী-যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়েছে।

ফলে ওই সড়কে চলাচলরত যাত্রী সাধারণ ও পণ্য বহনে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের দুর্ভোগ বাড়ছে। যাত্রীবাহী বাস ও পণ্যবাহী ট্রাকগুলো প্রায় ৫০ কিঃমিঃ পথ ঘুরে পাগলাপীর অথবা নীলফামারী হয়ে সৈয়দপুরের সাথে যোগাযোগ করছে।

এলাকাবাসির অভিযোগ, সম্প্রতি চাড়ালকাটা নদীর ডেজিংয়ের বালু একটি চক্র রাতের অন্ধকারে ১০চাকার গাড়িতে করে ব্রীজের উপর দিয়ে বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করায় ব্রীজটি নড়বড়ে হয়ে যায়।

গত ডিসেম্বর মাসে ব্রীজের একটি পাটাতন দেবে গেলে সড়ক বিভাগের লোকজন যেনতেন করে ব্রীজটি মেরামত করে দেয়। এবারে ব্রীজের পাটাতন ভেঙ্গে পড়ার বিষয়টি নীলফামারী সড়ক ও জনপথ বিভাগকে অবগত করা হলেও তারা এখন পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা নেয়নি।

রোববার সকালে সেিরজমিনে গিয়ে ব্রীজ সংলগ্ন দেবীর বাজারের শংকর রায়, কৃষ্ণ বর্মণ ও মুকুল হোসেনের সাথে কথা বলে জানা যায়, গত শুক্রবার তারাগঞ্জের হাটের দিনে ব্রীজের পাটাতন ভেঙ্গে নিচে পড়ে যায়। স্টীলের পাটাতনটি ব্রীজের নিচে পড়ে আছে। এব্যাপারে উপজেলা প্রশাসন ও সওজ কর্তৃপক্ষ কোন খোঁজ-খবর নিচ্ছেনা।

ব্রীজটি এমনিতেই নড়বড়ে হওয়ায় ঝুঁকিপুর্ণ হয়েছে, অত:পর পাটাতন ভেঙ্গে পড়ায় বাস-ট্রাক চলাচল বন্ধ হয়ে পড়েছে।

তবে কিশোরগঞ্জ হতে তারাগঞ্জ ও সৈয়দপুর যোগাযোগের একমাত্র সেতুবন্ধনকারী ব্রীজটির পাটাতন ভেঙ্গে পড়া সত্বেও অটো ভ্যান, ভটভটি ও রিক্্রায় করে লোকজন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ব্রীজের ওপর দিয়ে চলাচল করছে। এব্যাপারে নীলফামারী সড়ক জনপথ বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের বক্তব্য জানা যায়নি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য