আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলার রায়কে কেন্দ্র করে গাইবান্ধা জেলা শহরে বৃহস্পতিবার বিএনপি, মহিলা দল ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা পৃথক দুটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিল দুটিকে ছত্রভঙ্গ করে দিতে পুলিশ লাঠিচার্জ ও দু’দফায় ১০ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে।

রায় ঘোষণার পর জেলা জিয়া পরিষদের সদস্য সচিব ও শহর বিএনপির উপদেষ্টা খন্দকার আহাদ আহমেদের নেতৃত্বে ডিবি রোডে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হলে মহিলা কলেজের সামনে পুলিশ মিছিলটিকে বাধা দেয় এবং ছত্রভঙ্গ করে দিতে ৩ রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়ে।

এসময় খন্দকার আহাদ আহমেদ, গাইবান্ধা পৌরসভার ৭,৮,৯ ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের মহিলা কাউন্সিলর বিএনপি নেত্রী দিলর“বা বানু ঝর্না, তমা, মুনমুনসহ ৬ জনকে আটক করে। এছাড়া শহরের কাঠপট্টি এলাকা থেকে মিছিল করার সময় জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাহামুদুন্নবী টিটুল, শহর যুবদলের সভাপতি রাগিব হাসান উৎপলসহ ৩ জন নেতাকর্মীকে আটক করা হয়।

রায় ঘোষণার আগে জেলা ছাত্রদল সভাপতি জাকারিয়া খন্দকার জিমের নেতৃত্বে মহুরীপাড়া থেকে একটি মিছিল শ্লোগান দিতে দিতে জেলা বিএনপি কার্যালয়ের দিকে এলে ১নং ট্রাফিক মোড়ে পুলিশ তাদের ধাওয়া করে এবং তাদের ছত্রভঙ্গ করতে ৭ রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়ে।

এসময় পুলিশ জাকারিয়া খন্দকার জিম, জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি রাজিউর রহমান রনি, যুগ্ম সম্পাদক ইমাম হোসেন আনাম, শাহীনসহ ১১ জনকে আটক করে।

গাইবান্ধা সরকারি মহিলা কলেজের সামনে পুলিশের ছোড়া সর্টগানের রাবার বুলেট দু’পায়ে লেগে জেলা মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক ঝর্না মান্নান আহত হয়। তাকে চিকিৎসার জন্য সদর আধুনিক হাসপাতালে নেয়া হয়।

উলে¬খ্য, বুধবার গাইবান্ধা প্রেস ক্লাবে বিএনপি নেতা খন্দকার আহাদ আহমেদ, শহীদুজ্জামান শহীদসহ কয়েকজন নেতাকর্মী সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেন। এসময় খন্দকার আহাদ আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, বৃহস্পতিবার রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে গাইবান্ধায় স্বেচ্ছায় কারাবরণের একটি কর্মসূচী পালন করা হবে।
জেলা বিএনপির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান সরকার গাইবান্ধা প্রেস ক্লাবে এসে আটক বিএনপি, যুবদল, মহিলা দল, ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের অবিলম্বে মুক্তি দাবি করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য