রাশিয়া সর্বপশ্চিম প্রান্তে অবস্থিত কালিনিনগ্রাদ অঞ্চলে পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম ইস্কান্দার ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করা হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। পূর্ব ইউরোপে রুশ সীমান্তের কাছাকাছি এলাকায় মার্কিন সামরিক তৎপরতা বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে এ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

রুশ পার্লামেন্টের প্রতিরক্ষা বিষয়ক স্থায়ী কমিটির প্রধান ভ্লাদিমির শামানোভ বার্তা সংস্থা রিয়া নোভোস্তিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ইস্কান্দার ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েনের খবর জানিয়েছেন। তবে ঠিক কতটি ক্ষেপণাস্ত্র কতদিনের জন্য মোতায়েন করা হয়েছে তা তিনি জানাননি।

শামানোভ বলেন, ইস্কান্দার ক্ষেপণাস্ত্রের লক্ষ্যবস্তু হিসেবে বিদেশি সামরিক স্থাপনাকে বাছাই করা হয়েছে।

রাশিয়া এর আগেও একাধিকবার তার পশ্চিম সীমান্তে মার্কিন সেনা সমাবেশের জবাব দিতে কালিনিনগ্রাদে ইস্কান্দার ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করেছে।

৫০০ কিলোমিটার পর্যন্ত দূরত্বে আঘাত হানতে সক্ষম ইস্কান্দার ক্ষেপণাস্ত্র প্রচলিত অথবা পরমাণু ওয়ারহেড বহন করতে সক্ষম।

এদিকে রাশিয়ার এ পদক্ষেপের বিরুদ্ধে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন লিথুয়ানিয়ার প্রেসিডেন্ট ডালিয়া গ্রিবুসকাইত। তিনি দাবি করেছেন, রাশিয়া স্থায়ীভাবে এ ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করেছে এবং এর ফলে ইউরোপের প্রায় অর্ধেক দেশের রাজধানী শহরের নিরাপত্তা বিপন্ন হয়েছে।

রাশিয়ার পশ্চিম সীমান্তবর্তী এস্তোনিয়া, লিথুয়ানিয়া, লাটভিয়া ও পোল্যান্ডে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোট প্রায় ৪,০০০ সেনা মোতায়েন করেছে। রাশিয়া নিজের দোরগোড়ায় পাশ্চাত্যের এ সেনা সমাবেশে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য