২০১৫ সালে প্যারিস হামলার ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া সালেহ আব্দেসলামকে বিচারের মুখোমুখি করতে ফ্রান্স থেকে বেলজিয়ামের আদালতে হাজির করা হয়েছে। প্যারিস হামলার জন্য নয়, বরং ব্রাসেলস থেকে গ্রেফতারের সময় পুলিশের সঙ্গে গোলাগুলিতে লিপ্ত হওয়ায় বেলজিয়ামে বিচারের মুখোমুখি হচ্ছে সে।

দোষী প্রমাণ হলে তার ৪০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে। ধারণা করা হচ্ছে ফ্রান্সে আব্দেসলামের বিরুদ্ধে ২০২০ সালের আগে বিচার প্রক্রিয়া শুরু হবে না। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি খবরটি জানিয়েছে।

২০১৫ সালের ১৩ নভেম্বর প্যারিসে ধারাবাহিক সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় সালাহ আব্দেসলামকে অন্যতম সন্দেহভাজন বলে বিবেচনা করা হয়। এ হামলায় ১৩০ জন নিহত হন। আহত হন আরও অনেকে। হামলা ও হামলা পরবর্তী পুলিশি অভিযানে আব্দেসলাম বাদে বাকি সব সন্দেহভাজন হামলাকারীই মারা পড়ে। তাদের মধ্যে আব্দেসলামের ভাই ব্রাহিমও রয়েছে।

নভেম্বর থেকে চার মাস পালিয়ে থাকার পর ২০১৬ সালের ১৮ মার্চ বেলজিয়াম পুলিশের এক অভিযানে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ব্রাসেলসের মোলেনবিক এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় আব্দেসলামকে। পরে ফ্রান্সের কাছে তাকে হস্তান্তর করা হয়।

সোমবার (৫ ফেব্রুয়ারি) ২শ’র মতো পুলিশ সদস্য কড়া পাহারা দিয়ে আব্দেসলাম এবং তার সন্দেহভাজন সহযোগী সোফিয়ান আয়ারিকে বেলজিয়ামের আদালতে হাজির করা হয়।

আব্দেসলাম এবং তার সন্দেহভাজন সহযোগী সোফিয়ান আয়ারির বিরুদ্ধে অবৈধভাবে অস্ত্র রাখার এবং পুলিশ কর্মকর্তাদের হত্যা প্রচেষ্টার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। বিচারে দোষী সাব্যস্ত হলে দুইজনেরই সর্বোচ্চ ৪০ বছর করে জেল হতে পারে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

মরোক্কান বংশোদ্ভূত ফরাসি নাগরিক আব্দেসলামকে প্যারিসের কাছে একটি জেলে রাখা হয়েছে। সোমবার সকালে কড়া পাহারায় তাকে সীমান্ত পার করে বেলজিয়ামে নিয়ে যাওয়া হয়। যেদিন যেদিন শুনানি থাকবে সেদিনই তাকে বেলজিয়ামে নেওয়া হবে এবং রাতে ফ্রান্সে সীমান্তের কাছে অন্য একটি জেলে রাখা হবে। এ ধাপে চারদিন শুনানি হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য