ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুর্শিদাবাদে যাত্রীবাহী একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সেতুর রেলিং ভেঙে বিলের পানিতে পড়ে গেছে।

সোমবার সকাল সোয়া ৭টার দিকে জেলার দৌলতাবাদে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে জানিয়েছে আনন্দবাজার পত্রিকা।

ঘটনার পরপরই স্থানীয়রা নদী থেকে বাসটির ১০ যাত্রীকে উদ্ধার করেন। এদের মধ্যে সাতজন পুরুষ ও তিনজন নারী। কিন্তু পাড়ে ওঠানোর পরপরই এক বৃদ্ধা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

নদী থেকে আরো দুই যাত্রীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়বে বলে আশঙ্কা।

উদ্ধার পাওয়া যাত্রীরা জানিয়েছেন, বাসটিতে প্রায় ৬০ থেকে ৭০ জন যাত্রী ছিল।

বাসটি করিমপুর থেকে মালদহ যাচ্ছিল বলে পুলিশের বরাতে জানিয়েছে আনন্দবাজার।

দৌলতাবাদের বালিরঘাট সেতুর ওপর দিয়ে যাওয়ার সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাসটি সোনার রত্নাকর বিলের পানিতে পড়ে ডুবে যায়। ঘটনার সময় চালক মোবাইল ফোনে কথা বলতে বলতে সেতুর ওপর একটি লরিকে ওভারটেক করার চেষ্টাকালে নিয়ন্ত্রণ হারান বলে জানিয়েছেন উদ্ধার পাওয়া এক যাত্রী।

দুর্ঘনার বেশ কিছুক্ষণ পর উদ্ধারকাজ শুরু হওয়ায় বিলের পাড়ে জড়ো হওয়া হাজার হাজার স্থানীয় বাসিন্দা উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। পুলিশ ও দমকল কর্মীদের লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়ার পর পুলিশের দুটি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেন তারা।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ লাঠিপেটা করে ও কাঁদুনে গ্যাস ছোড়ে, শূন্যে বেশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলিও চালায়।

পরে পুলিশ ও দমকল বাহিনী যৌথভাবে উদ্ধার কাজ শুরু করে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ক্রেন দিয়ে বাসটিকে বিল থেকে উদ্ধারের চেষ্টা করা হচ্ছে। বাসটির ভিতরে বহু মৃতদেহ আটকে রয়েছে বলে ধারণা স্থানীয়দের।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য