মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর থেকেঃ রাষ্টীয় কোষাগার হতে পেনশনসহ বেতন-ভাতা ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা প্রদানের দাবীতে দিনাজপুর পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারিরা ২৮-৩০ জানুয়ারী তিন দিনের পূর্ণদিবস কর্মবিরতির প্রথম দিন পালন করেছে।

রোববার (২৮ জানুয়ারী) সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত দেশব্যাপী কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে দিনাজপুর পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এই কর্মবিরতি কর্মসূচী পালন করে। এদিকে পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারিদের কর্মবিরতির ফলে জরুরী সেবা নিতে আসা পৌর নাগরিকরা বিড়ম্বনায় পড়েন।

কর্মবিরতি চলাকালে বাংলাদেশ পৌরসভা সার্ভিস এসোসিয়েশন (ইঅচঝ) দিনাজপুর পৌরসভা শাখার সভাপতি মো. মজিবর রহমান বাচ্চু’র সভাপতিত্বে কর্মবিরতি কর্মসূচী চলাকালে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ পৌরসভা সার্ভিস এসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় কমিটির সাহিত্য ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং রংপুর বিভাগীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক দিনাজপুর পৌরসভার উপ-সহকারী প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) মো. হাবিবুর রহমান, কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা ও দিনাজপুর পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. রফিকুল ইসলাম। কর্মসূচীর প্রতি একাত্বতা প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র আহাম্মেদুজ্জামান ডাবলু, কাউন্সিলর রোকেয়া বেগম লাইজু, মো. জিয়াউর রহমান নওশাদ।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ পৌরসভা সার্ভিস এসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় কমিটির অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী বিষয়ক সম্পাদক ও জেলা শাখার সভাপতি সহকারী প্রকৌশলী মো. রইচ উদ্দিন মিয়া, সাধারণ সম্পাদক সহকারী প্রকৌশলী মো. লাইছুর রহমান চৌধুরী প্রমূখ। কর্মসূচীতে পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী (পানি) মীর তোফাজ্জল হোসেন, জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মো. শামসুল রানা, দপ্তর সম্পাদক মো. আব্দুল লতিফ, প্রবীন সংগঠক মো. আমজাদ আলী, এসোসিয়েশন নেতা মো. ময়েজ উদ্দিন, আব্দুর রাজ্জাক-১, মোহাম্মদ আলী, মো. শরিফ, কামরান চিশতি, আব্দুস সামাদ আজাদ, লিয়াকত আলী, আব্দুর রাজ্জাক-৩, মিজানুর রহমান, মাধবী লতা সকল স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী অংশগ্রহণ করেন।

উল্লেখ্য, সারা দেশের ৩২৭টি পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা একযোগে ২৮-৩০ জানুয়ারী তিন দিন পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালন করছে।

বক্তারা বলেন, সংবিধান অনুযায়ী সরকারের ৫টি নির্বাহী বিভাগের মধ্যে অন্যান্য বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা রাষ্ট্রীয় কোষাগার হতে বেতন-ভাতা পেলেও স্থানীয় সরকারের আওতাধীন পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পায় না।

স্থানীয় সরকার বিভাগের আওতাধীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান-এলজিইডি, ডিপিএইচই, ওয়াসা, জেলা পরিষদ, উপজেলা পরিষদ, ইউনিয়ন পরিষদ, সমবায় অধিদপ্তরসহ স্থানীয় সরকারের আওতাধীন অন্যান্য সকল প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের সরকারী তহবিল হতে পেনশনসহ বেতন-ভাতা সুবিধা প্রদান করা হলেও পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারিদের বেলায় তা হয় না। ফলে কর্মকর্তা-কর্মচারিরা পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করেন। এ দাবীতে তারা দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করলেও সরকার তাদের দাবীর প্রতি কর্নপাত করছে না।

বক্তারা সরকারের এই দ্বৈতনীতি পরিহার করে অবিলম্বে পৌরসভা কর্মকর্তা-কর্মচারিদের বেতন-ভাতা ও পেনশন সুবিধা রাজস্ব তহবিল হতে প্রদানের দাবী জানান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য