দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে জামি নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে ফসল বিনস্টের অভিযোগ পাওয়া গেছে। একই ঘটনায় পুলিশের কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে মেহেদুল ইসলাম (৩৮) নামে এক জনকে আটক করেছে পুলিশ। আটক মেহেদুল রাজারামপুর গ্রামের আজিজার রহমানের ছেলে।

জানা গেছে রাজারামপুর মৌজার ৩ একর ৮৭ শতক জমি নিয়ে একই গ্রামের আজিজার রহমান ও মশিহদ দৌল্লা চৌধুরীর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে মামলা-হামলা চলছে। তাই বিবাদমান জমিতে শান্তিস্থিতিবস্থা বজায় রাখতে আদালত ফুলবাড়ী থানাকে রিসিভার নিয়োগ করে।

ফুলবাড়ী থানা কর্তৃপক্ষ রিসিভার নিয়োগের নোটিশ টানানোর জন্য ওই জমিতে পুলিশ গেলে, নোটিশ টানানোতে বাধা দেয় আজিজার রহমানসহ তার লোকজন। এই ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছে।

পুলিশ ও সন্ত্রাসীর পকেট বানিজ্যের কারনে নিরবে ধ্বংস হলো ৩ একর ৮৭ শতক জমির চাষ করা ফসল। গ্রামবাসীর অভিযোগ পুলিশের উপস্থিতিতে সন্ত্রাসীরা বীরদর্পে ট্রাক্টর চালিয় চাষ করা ফলন্ত ফসল ভুট্টা,আলু,বেগুন ও হলুদ মাটির সাথে মিশিয়ে দিয়েছে। পাল্টাপাল্টি ঘটনার প্রেক্ষিতে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

জমির মালিকের কন্যা মোরশেদা ফৌজিয়া সাথী সাংবাদিকদের জানান, দিনাজপুরের ফুলবাড়ি উপজেলার রাজারামপুর গ্রামের আজিজার রহমানের ৩ একর ৮৭ শতক আবাদী জমির ফসল নষ্ট করেছে ভুমিদস্যূ ও সন্ত্রাসীদের গডফাদার চেয়ারম্যান মামুনুর রশীদ বিপ্লবের সন্ত্রাসীরা। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টায় ওই জমির দখল নিতে প্রকাশ্য দিবালোকে পুলিশের সাহায্যে আবাদ করা ফলন্ত ফসল ভুট্টা,আলু,বেগুন ও হলুদ গাছ ট্রাক্টর চালিয়ে নির্দয়ভাবে ধ্বংস করেছে সন্ত্রাসী লিটন বাহিনী। এসময় উত্তেজিত গ্রামবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে উঠলে পুলিশ ও সন্ত্রাসীরা প্রাথমিক ভাবে পিছু হটে যায়।

এব্যাপারে বৃহস্পতিবার সকালে রাজারামপুর গ্রামের কলিম উদ্দীনের পুত্র মোঃ হাফিজুল ইসলাম এবং লোকমান আলীর পুত্র আনিসুর রহমানসহ আরো কয়েকজন গ্রামবাসীদের সাথে কথা হলে তারা জানান, ফুলবাড়ি থানা পুলিশের এসআই ইসাহাকের নেতৃত্বে একদল পুলিশ চেয়ারম্যানের ছোটভাই সন্ত্রাসী লিটন ও তার বাহিনীকে ফলন্ত ফসল ধ্বংসের কাজে সহযোগীতা করেছে।

৭নং ইউপি চেয়ারম্যান মামুনুর রশীদ তার বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন ,জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের কারনে উভয় পক্ষ দাঙ্গা-ফ্যাসাতে লিপ্ত থাকায় বিষয়টি নিষ্পত্তির চেষ্টা করেও পারা যায়নি। এবিষয়ে ফুলবাড়ী থানাকে আইনী সহায়তার জন্যে এলাকার চেয়ারম্যান হিসেবে লিখিত ভাবে অবহিত করেছি তারা পদক্ষেপ নিয়েছেন।

ফুলবাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ মোঃ নাসিম জানান,রাজারামপুর গ্রামের আজিজার রহমান ও মশিহদ দৌল্লা চৌধুরীর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে ওই জমি নিয়ে মামলা-হামলা চলছে। তাই বিবাদমান জমিতে শান্তিস্থিতিবস্থা বজায় রাখতে আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী রিসিভার নিয়োগের নোটিশ টাঙ্গাতে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। এসময় গ্রামবাসীরা অন্যায় ভাবে সরকারী কাজে বাধা প্রদান করেছে এবং পুলিশের উপর হামলা করেছে। সরকারী কাজে বাধা প্রদানের ব্যাপারে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য