বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি অভিনেত্রী সুপ্রিয়া দেবী আর নেই। আজ (২৬ জানুয়ারি) ভোর ৬টায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে কলকাতার বালিগঞ্জ সার্কুলার রোডের বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন।

বর্ষীয়ান এই অভিনেত্রীর মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে টলিউডে। এই মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন কলকাতার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

কলকাতার মিডিয়া সূত্রে জানা গেছে, সুপ্রিয়া দেবীর শেষকৃত্য হবে শুক্রবার (২৬ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় কেওড়াতলা মহাশ্মশানে। সেখানে গান স্যালুটের মাধ্যমে শেষকৃত্যর আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হবে। এর আগে স্থানীয় সময় বেলা তিনটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত সবার শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য সুপ্রিয়া দেবীর মরদেহ রাখা হবে রবীন্দ্র সদনে।

তার আসল নাম ছিল সুপ্রিয়া চৌধুরী। বার্মায় জন্ম। সাত বছর বয়সে বাবার হাত ধরে তার থিয়েটারে আত্মপ্রকাশ।

২০০৬ সাল পর্যন্ত ৪৫টি সিনেমাতে অভিনয় করেন সুপ্রিয়া। ২০১১ সালে ‘বঙ্গবিভূষণ’ এবং ২০১৪ সালে ‘পদ্মশ্রী’ পুরস্কারে সম্মানিত করা হয় এই নন্দিত অভিনেত্রীকে।

‘মেঘে ঢাকা তারা’, ‘দেবদাস’, ‘দুই পুরুষ’, ‘বন পলাশীর পদাবলী’র মতো ছবি সুপ্রিয়া দেবীকে ব্যাপক খ্যাতি এনে দেয়। ষাটের দশকের শেষের দিক থেকে পরবর্তী এক দশকের বেশির ভাগ ছবিতেই উত্তম কুমারের নায়িকার ভূমিকায় ছিলেন তিনি। ‘সোনার হরিণ’, ‘শুন বরনারী’, ‘উত্তরায়ণ’, ‘সূর্য্যশিখা’, ‘সবরমতী’ , ‘মন নিয়ে’সহ অসংখ্য ছবিতে উত্তম কুমারের বিপরীতে অভিনয় করে প্রশংসিত সুপ্রিয়া।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য